Unlimited Powerpoint templates, graphics, videos & courses! Unlimited asset downloads! From $16.50/m
Advertisement
  1. Business
  2. Portfolios
Business

৯ টি সহজ ধাপে তৈরি করুন অসাধারণ অনলাইন পোর্টফলিও

by
Length:MediumLanguages:

Bengali (বাংলা) translation by Shakila Humaira (you can also view the original English article)

প্রত্যেক ফ্রিল্যান্সাররই একটি অনলাইন পোর্টফলিও থাকা উচিত। আপনার নিশ্চয়ই একটি আছে, তাই না? যদি না থাকে তাহলে, এই পোস্টের শেষ প্যারাগ্রাফটি দেখুন। এটা আপনার জন্যই লিখা হয়েছে।

আপনার যদি ইতিমধ্যেই একটি পোর্টফলিও থেকে থাকে, তাহলে হয়তোবা হাঁফ ছেড়ে বাঁচলেন। কারণ, ইতিমধ্যেই আপনি অর্ধেক পথ শেষ করেছেন।

পোর্টফলিও তৈরি করা খুব সহজ। কিন্তু এটাকে উন্নত করাই কঠিন। একটি অসাধারণ পোর্টফলিও কেবল আপনার কাজকেই তুলে ধরবে না, আরও অনেকভাবে সহযোগিতা করবে। এটা আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটরদেরকে গ্রাহকে পরিণত করবে। সর্বোপরি, এটা হচ্ছে একটি স্বয়ংক্রিয় কাজ পাবার মাধ্যম।

এই পোস্টে, আমি আপনাকে দেখাতে চাচ্ছি, কিভাবে আপনার অনলাইন পোর্টফলিওটিকে অন্য মাত্রায় নিয়ে যাবেন।

নোটঃ মাসে কয়েকবার আমরা আমাদের পাঠক-সেরা পোস্টগুলো ফ্রিল্যান্সসুইচ এর মাধ্যমে যাচাই করে থাকি। স্কেলির লেখা এই আর্টিকেলটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৩ই ডিসেম্বর, ২০০৭ সালে, যদিও এখনও এটা বেশ কাজের এবং সমসাময়িক তথ্যে পরিপূর্ণ।

১। প্রশ্ন করুন

অনলাইন পোর্টফলিও সাধারনত তিন ধরণের হয়ে থাকেঃ ব্লগ, ওয়েবসাইট অথবা একটি ডেডিকেটেড বা নিবেদিত সল্যুশন আকারে (যা কেবল একটি পোর্টফলিও, এবং এখানে অন্য কোন বিষয় থাকে না)।

এটা পড়ার পর যেই প্রশ্নটি আপনার মাথায় আসবে তা হচ্ছেঃ আমার সাইটটি সম্ভাব্য গ্রাহকদের সাধারণ প্রশ্নসমূহের উত্তর দিতে আসলে কতটা সমর্থ?

২। বিষয়বস্তু যাতে সহজ সরল হয় সেদিকে আলোকপাত করা

আপনার পোর্টফলিওটি তৈরি করা হয়েছে কাঙ্ক্ষিত গ্রাহককে মুগ্ধ এবং আশ্বস্ত করার জন্যই। যদি আপনার একটি ব্লগ অথবা ওয়েবসাইট থাকে, তবে আপনি সম্ভবত অন্যান্য সোর্স থেকে সচেতনভাবে ভিজিটর পেতে চেষ্টা করেছেন। হয়তোবা আপনি আপনার উপলব্ধ জ্ঞান শেয়ার করে অথবা অন্য কোন উপায়ে পাঠকদের সহযোগিতা করছেন।

এতে একটি সম্ভাব্য অসুবিধাও আছে, যদিও আপনি অনেক মানুষকে আকৃষ্ট করতে সক্ষম হবেন, কিন্তু আপনি আপনার গ্রাহককে যেই পরিস্কার বার্তাটি দিতে চাচ্ছেন, তা হয়তো অনেক তথ্যের ভীড়ে হারিয়ে যাবে।

আপনি যদি কাজ খুঁজে থাকেন, তাহলে এটা সরাসরি এবং স্পষ্টভাবে তুলে ধরতে ভুলবেন না। এজন্য আপনার ওয়েবসাইটে একটি 'নিযুক্ত করুন' বোতাম, লিঙ্ক অথবা সেকশন রাখুন।

সারল্য বা সহজ সরল ভাবে তুলে ধরা হচ্ছে ভালো ওয়েব ডিজাইনের চাবি-কাঠি। সাম্ভাব্য গ্রাহকের সামনে একটিই প্রশ্ন থাকেঃ আমি যদি এই লোকটিকে নিযুক্ত করতে চাই তাহলে কিভাবে অগ্রসর হবো?

তাদেরকে এই প্রশ্নের উত্তরটি যতটা সহজ সরলভাবে দেয়া সম্ভব হয়, দিন।

৩। আপনার “সম্পর্কে” পাতাটি অপ্টিমাইজ করুন।

একটি ভালো ‘সম্পর্কে’ পাতা কখনও অতিরঞ্জিত হয় না। এটা হচ্ছে সেই জায়গা যেখানে সম্ভাব্য গ্রাহকরা বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে ভিজিট করে থাকেনঃ

  • এই লোকটি কে?
  • তাঁদের কি যোগ্যতা এবং অভিজ্ঞতা আছে?
  • তাঁদেরকে কি বিশ্বাসযোগ্য এবং নির্ভরযোগ্য মনে হয়?
  • তাঁরা কি কাজের সন্ধানে আছে?
  • তাঁদের পূর্বের কাজের কিছু উদাহরণ কি আমি দেখতে পারি?

আপনি দুইভাবে নিজেকে বিশ্বাসযোগ্য এবং নির্ভরযোগ্য হিসেবে প্রমান করতে পারেন। আপনি আগের ক্লায়েন্ট থেকে পাওয়া প্রশংসাপত্র দেখাতে পারেন, অথবা এমনভাবে নিজেকে তুলে ধরতে পারেন, যেখানে আপনি একজন স্বাভাবিক মানুষ হিসেবে নিজেকে প্রতীয়মান করবেনঃ যেমন আপনার পরিবার, শখ এবং অন্যান্য বিষয় তুলে ধরতে পারেন।

একেবারে শেষের প্রশ্নের জন্য, আমি মনে করি এমন একটি পেইজ লিঙ্ক তৈরি করুন, যাতে আপনার পূর্বের কাজের উদাহরণসমূহ থাকবে। এটাই হচ্ছে পোর্টফলিও। আর এটাকে অবশ্যই পেশাদার এবং আকর্ষণীয় হতে হবে। আপনি কোনরকম বিচুত্যি ও ভুলত্রুটি ছাড়াই কি কি করতে সক্ষম সে সম্পর্কে এটা আপনার সম্ভাব্য গ্রাহককে অবহিত করবে।

৪। খুব পরিচ্ছন্নভাবে যোগাযোগের ঠিকানা দিন।

‘সম্পর্কে’ পাতার শেষে যোগাযোগের তথ্য প্রদান করা ক্ষতিকর নয়, কিন্তু এটাই একমাত্র জায়গা নয়, যেখানে আপনি এই তথ্যগুলো দিতে পারেন।

ওয়েবসাইটের ব্যবহারযোগ্যতা কথ্যের মতই। যদি সম্ভাব্য গ্রাহক আপনার সাথে যোগাযোগ করতে চায়, তাহলে কি তাঁরা আপনার সম্পর্কে আবার আপনাকে জিজ্ঞাসা করবে? মনে হয় না। কারণ এটা অনর্থক। তার পরিবর্তে তাঁরা আপনাকে জিজ্ঞাসা করবেঃ কিভাবে আমি আপনার সাথে যোগাযোগ করতে পারি? একটি গ্রহণযোগ্য 'যোগাযোগ' পাতায় এই প্রশ্নটির সহজ এবং পরিষ্কার উত্তর থাকবে।

৫। একটি আলাদা ‘নিযুক্ত করুন’ পেইজ তৈরি করুন।

ঐতিহ্যগতভাবে আপনার পোর্টফলিওতে যদি আপনার কাজ প্রদর্শিত হয়, তাহলে আপনার ‘সম্পর্কে’ পাতাটিই এক্ষেত্রে যথেষ্ট। যদি আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইটের বিষয়বস্তু অনেক মানুষের উদ্দেশ্যে তৈরি করে থাকেন, তবে সম্ভবত আপনি ‘সম্পর্কে’ পাতাটিতে আপনার সাইটের উদ্দেশ্য এবং প্রস্তাবনাসমুহ লিপিবদ্ধ করে থাকবেন। 

ঠিক এজন্যই একটি ‘নিযুক্ত করুন’ পাতা গুরুত্বপূর্ণ (যদিও আপনি  জনাথনকে নিযুক্ত করুন , অথবা অন্য কোনও নামেও ডাকতে পারেন। এটাতে অবশ্যই ‘সম্পর্কে’ পাতার জন্য আলাদা সেকশনে থাকা তথ্যসমুহ অন্তর্ভুক্ত করা উচিত।

আপনি চাইলে আপনার ‘নিযুক্ত করুন’ পাতাটির জন্য সাইটের মূল পাতা থেকে লিঙ্ক তৈরি করতে পারেন। যদি আপনি নতুন কাজ পেতে চান, তাহলে এ ব্যপারে স্পষ্টবাদী হোন।

৬। যেসব দক্ষতার জন্য আপনি কাজ পেতে চান, সেগুলো উপস্থাপন করুন

আপনার পোর্টফলিওতে কি কি দক্ষতা উপস্থাপন করবেন তা উপস্থিত বুদ্ধির ব্যপার, কিন্তু আমি অনেক অনলাইন পোর্টফলিওতে এ ব্যপারে ভুল করতে দেখেছি।

একজন ফ্রিল্যান্সার তার অনেক রকম দক্ষতাই তুলে ধরতে পারে। আপনি তার ‘সম্পর্কে’ পাতায় গিয়ে দেখবেন যে, তাঁরা এসবের মধ্যে কেবল একটি ক্ষেত্রেই কাজের সন্ধান করছে। তাঁরা তাঁদের পোর্টফলিওটি একজন সম্ভাব্য গ্রাহকের কাছে সাহায্যকারী উৎসের পরিবর্তে একটি সচরাচর ফোল্ডার হিসেবে ব্যবহার করছে।

আপনি যদি এই মুহূর্তে শুধুমাত্র ওয়েব ডিজাইনের জন্যই কাজ পেতে চান, তাহলে আপনার ফটোগ্রাফি দক্ষতা প্রদর্শন করবেন না। আপনার পোর্টফলিও আইটেমগুলো সর্বদা আপনার ঐ দক্ষতাগুলোই প্রদর্শন করবে, যেসব বিষয়ে আপনি কাজ পেতে ইচ্ছুক

৭। এমনভাবে বর্ণনা করুন যা সম্ভাব্য গ্রাহক শুনতে চান

এটা খুবই স্বাভাবিক যে, আপনি আপনার সম্ভাব্য গ্রাহকের তুলনায় আপনার কাজের ক্ষেত্রে দক্ষ ও অভিজ্ঞ। এবং, যেসব মানুষ একজন ওয়েব ডিজাইনারকে নিযুক্ত করে থাকেন, তাঁরা বেশিরভাগ সময়েই নিজেরা ডিজাইনার হোন না। আর একারণে, তাঁরা সাধারণত আপনার কাজের সৃ্জনশীলতার মান নিরূপণ করতে পারেন না।

আর ঠিক একারনেই, আপনাকে আপনার কাজের প্রক্রিয়াটি সবিস্তারে বর্ণনা করা প্রয়োজন। কোন মিথ্যা নয়, অবশ্যই—সত্য এবং আসল ঘটনা হতে হবে। ফলাফল সম্পর্কে বর্ণনা করুন। আপনার গ্রাহকের জন্য় কোন ডিজাইনটি কি করেছে? আপনার কাজ থেকে কিভাবে তাঁরা উপকৃত হয়েছে?

এমন আইটেম প্রদর্শন করবেন না, যেগুলো করে আপনি গর্বিত। বরং এমন আইটেমগুলো প্রদর্শন করুন, যেগুলো আপনার গ্রাহকের জন্য সেরা ফলাফল নিয়ে এসেছে। পুনরায় ডিজাইন করার পর আপনার ওয়েবসাইটের ট্রাফিক কি ৩০% বেড়ে গেছে? আপনার কোন এক গ্রাহকের জন্য সর্বশেষ লিখিত আর্টিকেলটি কি Digg এর প্রথম পাতায় চলে এসেছে?

সম্ভাব্য গ্রাহকরা কাজের তুলনায় বর্ণনা শুনতে বেশী আগ্রহী হয়ে থাকে। সর্বদা মনে রাখবেন, আপনার কাজের একটি পরিসমাপ্তি আছে, আর তা হচ্ছেঃ আরও বেশি ট্রাফিক বা ভিজিটর, আরও বেশি বিক্রয়, আরো বেশি লাভ। ফলাফল কি হয়, তার উপর আলোকপাত করে আপনি সম্ভাব্য গ্রাহক আসলে কি চায় তা বুঝতে পারবেন।

৮। এমনভাবে দর্শক টেনে আনুন যাতে গ্রাহকে পরিণত হয়

আপনি সম্ভাব্য গ্রাহক খুঁজে বের করে তাঁদেরকে আপনার পোর্টফলিও দেখাতে পারেন, অথবা এমন একটি পোর্টফলিও তৈরি করতে পারেন, যা মানুষ আপনার সাহায্য ছাড়াই খুঁজে পায়। এদের মধ্যে কেউ কেউ আপনার সম্ভাব্য ক্লায়েন্ট হবে। পর্যাপ্ত ট্রাফিক বা ভিজিটর নিয়ে আসুন, সুন্দর একটি ভাবমূর্তি তৈরি করুন, এবং আপনার পোর্টফলিওটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে আপনার কাজের যোগান দিবে।

সাধারণত যত বেশি মানসম্পন্ন ট্রাফিক হবে, ততবেশি কাজ পাওয়া যাবে। তবে, একটি জনপ্রিয় ওয়েবসাইট তৈরি করতে অনেক প্রয়াস লাগে। এক সময়ে হয়তো অনেক বেশি প্রচেষ্টা জোরদার হয় না, তবে সময়ের সাথে ধীরে ধীরে গড়ে উঠা প্রচেষ্টাই কার্যকর হয় বেশি। বেশীরভাগ সফল ব্লগার এবং ওয়েবমাস্টারদের জন্য এই প্রচেষ্টাকে একটি টেকসই চাকরির তুলনায় একটি স্বল্প আয়ের শখের মতই বলা যেতে পারে।

একজন ফ্রিল্যান্সার হিসাবে, আপনি আপনার সাইটটিকে কয়েকটি উপায়ে মানসম্পন্ন করে তুলতে পারেন:

  • অন্যান্য ফ্রিল্যান্সারদের সাথে আপনার অর্জিত জ্ঞান বিনিময় করুন।
  • নতুন ফ্রিল্যান্সারদেরকে পরামর্শ দিন।
  • আপনার নিজস্ব কাজ এবং যেসব কাজ আপনার ভালো লাগে সেগুলো তুলে ধরুন।
  • উপকারী সরঞ্জাম বা টুলস তৈরি করুন।
  • আপনার নিজস্ব উন্নতির গল্প বলুন।

এখানে পাঁচটি উপায় দেয়া হলো। আরও যে, একশয়েরও বেশি উপায় আছে তাতে কোনও সন্দেহ নেই। এখানে কি করতে হবে না হবে, সে ব্যাপারে কোনও বাধ্যবাধকতা নেই, তাই আপনার যা ভালো লাগে তার সাথে লেগে থাকুন। এর ফলে, যদিও ট্রাফিক বা ভিজিটর না থাকে, তবুও আপনার ভালো লাগা অবশ্যই থাকবে।

৯। কিছুটা সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশনের সাহায্য নিন

যদি আপনি ক্রমাগত বিষয়বস্তু ও অন্তর্মুখী (inbound) লিঙ্ক তৈরি করতে না চান, তাহলে আপনার সাইটটিকে সার্চইঞ্জিন-বান্ধব করে তুলতে এই সহজ টিপসগুলো অনুসরণ করতে পারেন। এগুলো তাঁদের জন্য যাদের এসইও (SEO) সম্পর্কে জানাশোনা আছে। কিন্তু যাদের এ ব্যপারে কিছু জানা নেই, তাঁদের জন্য সংক্ষেপে বলছি, এটা হচ্ছে সেই প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে নির্দিষ্ট কীওয়ার্ড বা শব্দগুচ্ছের উপর ভিত্তি করে আপনার ওয়েবসাইটটিকে সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম পাতায় দেখাতে চেষ্টা করা।

আপনি যদি এটা সঠিকভাবে করতে পারেন, তাহলে বেশি কাজ না করেই সার্চ ইঞ্জিনের মাধ্যমে স্বয়ংক্রিয়ভাবে অনেক সার্চ ট্রাফিক পাবেন।

আপনি যদি উপসাগরীয় এলাকার কোনও ওয়েব ডিজাইনার হয়ে থাকেন, তাহলে আপনার সম্ভাব্য গ্রাহকরা সম্ভবত গুগলে এভাবে খুঁজবে, 'উপসাগরীয় এলাকার ওয়েব ডিজাইনার'। এই শব্দগুচ্ছগুলো আপনার ওয়েবসাইটে যত বেশি সম্ভব (স্বাভাবিক ভাবে) ব্যবহার করুন। এটা আপনার ওয়েবসাইটের টাইটেল বারে ব্যবহার করুন, 'সম্পর্ক' পাতায়ও এই শব্দগুলো রাখুন, এবং অন্যান্য বিষয়বস্তুতেও ব্যবহার করুন।

শুধু মনে রাখবেন যে, এটা খুব সূক্ষ্মভাবে ব্যবহার করবেন। যদি অনেক বেশি প্রতিযোগিতা না থাকে তাহলে আপনার মূল কী-ওয়ার্ডটি কয়েকবার ব্যবহার করাই যথেষ্ট।

এই চর্চার ফলে আপনি এমন ভিজিটর পাবেন, যারা আপনার মত কাউকেই নিযুক্ত করতে চাচ্ছে। এটা করা খুবই সহজ, এবং না করলেই নয়।

* যাদের কোনও পোর্টফলিও নেই, তাঁদের জন্য এই প্যারাগ্রাফটি। আপনি চাইলে Carbonmade থেকে খুব দ্রুত একটি নিজস্ব পোর্টফলিও তৈরি করে নিতে পারেন।

সম্পন্ন হয়ে গেছে? চমৎকার। আপনি এই পোস্টটি পড়ার পর নিশ্চয়ই আপনার পোর্টফলিওটি সুন্দরভাবে সাজাতে চাচ্ছেন, যেহেতু আপনি ইতিমধ্যেই একটি অনলাইন পোর্টফলিও এবং প্রয়োজনীয় সবকিছুই পেয়ে গেছেন...

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Looking for something to help kick start your next project?
Envato Market has a range of items for sale to help get you started.