Students Save 30%! Learn & create with unlimited courses & creative assets Students Save 30%! Save Now
Advertisement
  1. Business
  2. Income
Business

২০১৭তে প্যাসিভ ইনকামের জন্য ৮টি বেষ্ট উপায়

by
Difficulty:IntermediateLength:LongLanguages:
This post is part of a series called How to Create Passive Income (Complete Beginner’s Guide).
15+ Quick, Easy Ways to Start Generating Passive Income
How to Evaluate Your Passive Income Ideas For Opportunities

Bengali (বাংলা) translation by Arnab Wahid (you can also view the original English article)

অনেক মানুষের কাছে প্যাসিফ ইনকাম একটি স্বপ্নের মত। এটি হচ্ছে ঘুমের মধ্যে টাকা আয়ের একটি উপায়ের মত! এর সাহায্যে দেশেবিদেশে ঘুরে বেড়ানো সম্ভব, সপ্তাহে মাত্র ৪ ঘন্টা কাজ করেই!  আমরা এই বিষয়ে একটি টিউটোরিয়াল সিরিজ বানিয়েছি, আগেই এই ব্যাপারে বিস্তর আলোচনা করা হয়েছে।

এই টিউটোরিয়াল পড়ার আগে যেই ৩টি ব্যাপার মাথায় রাখা দরকার তা হলঃ

এই ৩ টিউটোরিয়ালে প্যাসিভ ইনকামের বেসিক শেখানো হয়েছে। আর এই টিউটোরিয়ালে এখন আমরা একটি অন্য অ্যাপ্রোচ দেখবো। আসুন দেখি, ২০১৭তে প্যাসিভ ইনকামের বেষ্ট উপায়গুলো কি কি।

List the best ways to make passive income online
আসেন প্যাসিভ ইনকামের উপর নোট নেয়া শুরু করি (২০১৭ সালে)। (ফটোঃ সোর্স।)

২০১৭তে প্যাসিভ ইনকামের জন্য উপায় (শুরু করার ৮টি বেষ্ট উপায়)

প্যাসিভ ইনকাম করার বেষ্ট উপায় কি? কিভাবে এটি শুরু করা যায়? আসুন দেখে নেই প্যাসিভ ইনকাম করার ৮টি উপায়, ব্লগিং, ডিজিটাল মার্কেটের সেল করা সহ আরও অনেক পন্থা - আপনার পছন্দ মত যেন একটি আপনি বেছে নিতে পারেনঃ

১। ২০১৭ তে ব্লগিং শুরু করে প্যাসিভ ইনকাম করুন

প্যাসিভ ইনকামের সবচেয়ে সহজ উপায় হচ্ছে ব্লগিং। ব্লগিং করা সহজ হলেও, এটি দিয়ে প্যাসিভ ইনকাম করা কিন্তু ততটা সহজ না। বরং সেটাই সবচেয়ে কঠিন। ব্লগকে অন্য কাজ শুরু করার প্ল্যাটফর্ম হিসেবেও কাজে লাগাতে পারেন। যেগুলা থেকে আসল আয় হবে।

ব্লগিং এর বিষয় নির্ধারন করা ব্লগিং এর সবচেয়ে কঠিন অংশ। ব্লগ সফল হতে একটি ভালো বিষয় নিয়ে লিখতে হয়। আপনি যেই বিষয়ে সবচেয়ে ভালো জানেন, এই বিষয়ে লিখতে হবে। এমন কোন বিষয়, যেটা নিয়ে এখনও বেশি ভালো ব্লগ নেই।

ভ্রমন নিয়ে ব্লগ করতে পারেন, কিন্তু সেটা প্রতি ২০ জনের এক জন করে। এই ভিড়ে আপনাকে আপনার ব্লগ দিয়ে পাঠক খুঁজে না পেলে আসলে কোন লাভ নেই। সেভাবে ইনকাম করা যাবে না। তার বদলে এমন কোন বিষয় নিয়ে লিখুন, যেটায় ব্লগিং কম্পিটিশন কম। থাইল্যান্ড ভ্রমণের ব্লগ করার চেয়ে ভিন্টেজ গাড়ির মালিকদের নিয়ে ব্লগিং করে অ্যা করার সম্ভাবনা বেশি।

আয়ের দুটি উপায় হচ্ছে অ্যাড ও অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। আসুন একটা একটা করে এগুলা দেখি।

অপশন ১। অ্যাড দিয়ে সাইট মনেটাইজ

অ্যাড হচ্ছে সাইট মনেটাইজ করার সবচেয়ে সহজ উপায়। গুগল অ্যাড সেন্স দিয়ে এটি শুরু করা যায়। কেউ সাইটে ভিজিট করতে এসে অ্যাড দেখলে বা ক্লিক করলে আপনি কয়েক সেন্ট করে পাবেন।

সমস্যা হচ্ছে, অ্যাড থেকে খুব সামান্য আয় হয়। আবার অনেকে অ্যাড ব্লকার ব্যবহার করে সাইট ভিজিট করে। আর অনেক কম মানুষই অ্যাড সেন্স অ্যাডে ক্লিক করে।

এর চেয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানদের অ্যাড স্পেস সেল করা বেশি লাভজনক। ব্লগিং এর বিষয় ঠিক থাকলে আপনি সাইটে বেশি ট্রাফিক পাবেন। আর বেশি ট্রাইফিকে বেশি অ্যাড থেকে ইনকাম হবে। ভিন্টেজ গাড়ির উদাহরণের মত, পুরোনো গাড়ির পার্টস নিয়েও ব্লগ সফল হওয়ার চান্স বেশি।

অপশন ২ঃ অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম দিয়ে সাইট মনেটাইজ করা

অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম দিয়ে সাইট মনেটাইজ করা আজকাল অনেক জনপ্রিয়। অ্যামাজনের মত রিটেইলাররা তাদের প্রডাক্ট কেনার জন্য মানুষকে উৎসাহদানকারীদের একটি মুনাফা দিয়ে থাকে। এই মুনাফা বিক্রয় মুল্যের ৩% থেকে ৬০% পর্যন্ত হতে পারে। এভাবে অন্যের প্রডাক্ট সেলে সাহায্য করে প্যাসিভ ইনকাম করা সম্ভব।

অ্যাডের মতই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ঠিক মত করতে ব্লগের নিশ ঠিক থাকা দরকার। একটা সাধারণ ট্রাভেল ব্লগের চেয়ে একটা ভিন্টেজ BMW ব্লগ যে বেশি জনপ্রিয় হবে এতে কোন সন্দেহ নেই। কিন্তু যাই সেল করার অ্যাফিলিয়েট হন, সেটি আপনার নিজের সাইট থেকে সেল করা যাবেনা।

ব্লগ কে বেস হিসেবে ব্যবহার করে মনেটাইজেশন করা উচিৎ। ব্লগের বিষয়ের সাথে মিলিয়ে প্রোডাক্ট অ্যাফিলিয়েট করলে সেটা মানুষের কেনার সম্ভবনা বাড়ে। আগে থেকেই নিজের ব্লগ থাকলে এটি আপনার করতে সুবিধা হবে।

জানুন কিভাবে একটি সাকসেসফুল ব্লগ তৈরি করতে হয়ঃ

২। গাইড বিক্রয় করে প্যাসিভ ইনকাম ২০১৭

মানুষের কাছে ইনফরেশন গাইডের জনপ্রিয়তা অনেক। চাহিদা আছে এমন বিষয়ে গাইড গাইড তৈরি করে বিক্রি করলে প্যাসিভ ইনকামের উপায় করা সম্ভব।

গাড়ির ব্লগের উদাহরণের মতই, গাড়ি মেইনটেইন করতে অনেক ঝামেলা। অনেকেই এটা শিখতে চাইবে, কিন্তু সেটার জন্য তাদের টিউটোরিয়াল দরকার। আপনি একটি গাইডের মাধ্যমে এই ইনফরমেশন অফার করলে, সেটা মানুষ কিনতে আগ্রহী হবে। এভাবে ভিন্ন ভিন্ন গাড়ির মডেলের ৩/৪ টা গাইড বানিয়ে বিক্রি করা সম্ভব। সবাই গাড়ি ঠিক করবে না, কিন্তু গাড়ি ঠিক করার গাইড সবাই কিনতে চাইবে।

আমরা ব্লগের বিষয়বস্তু মুখ্য নয়। যদি আপনার ব্লগে এমন গাইড থাকে যেটির কোন বিকল্প অন্য কোথাও নেই, তাহলে মানুষ সেটা কিনবে।

৩। কয়েকদিনের মধ্যে একটি ভিডিও কোর্স তৈরি করে সেল করা

কোর্স গাইডের মতই, কোন বিষয়ে কিছু করার উপায় হিসেবে এটা পণ্য তৈরি করা যায়, স্পেশালি টেক বিষয়ক সাব্জেক্ট নিয়ে। আপনার কম্পিউটার, মাইক্রোফোন ও সফটওয়্যার থাকলেই আপনি অতি সহজে একটি উচ্চমানের কোর্স বানাতে পারেন। সেই কোর্স নিজের সাইট দিয়ে বিক্রি করতে পারেন। আবার Udemy এর মত বড় মার্কেটেও বিক্রি করতে পারেন।

গাইডের মত কোর্স দিয়েও ভালো আয় করা সম্ভব। কিন্তু বাজারে থাকা শতশত Photoshop 101 কোর্সের মত একটা কোর্স বানালে সেটা কেউ কিনবে না। এমন কিছু নিয়ে কোর্স করতে হবে, যেটা নিয়ে বাজারে অন্য কোর্স নেই বা কম আছে। তাহলে সুবিধা হবে।

৪। একটি ডিল নিউজলেটার - আজই শুরু করুন

সবাই ছাড় পছন্দ করে। ছাড়ের ডিল পেয়ে মানুষ আপনার প্রোডাক্ট কিনতে আগ্রহী হবে। তাই এসব অফার দিতে আজই একটি অফার নিউজলেটার শুরু করুন।

Secret Flying এর ওয়েবসাইটগুলো সফলভাবে এই কাজ করে থাকে। এই সাইট অনেক টেকনিক ও ট্রিক ব্যবহার করে ইউজারকে সবচেয়ে কম দামে প্লেনের টিকেট কিনতে সাহায্য করে।

SecretFlying deals passive income site
SecretFlying একটি প্যাসিভ ইনকাম সাইট।

তাই বলে SecretFlying সাথে প্রতিযোগিতায় নামলে কিন্তু কাজ হবে না, নিজের নিশের সাথে মিলিয়ে কিছু করতে হবে।

৫। অ্যামাজন দিয়ে কিছু বিক্রয় করা, শীঘ্রই।

নন ডিজিটাল প্রোডাক্টও অনলাইনে সেল করা যায়। আপনি এই অপশনের ব্যপারেও ভেবে দেখতে পারেন।

“Fulfilled by Amazon” আরেকটি জনপ্রিয় প্যাসিভ ইনকাম সোর্স, যেটা ২০১৭ তে প্রোমোট করা হচ্ছে। মুলত যে কোন ফিজিক্যাল প্রোডাক্ট (হাতে বানানো বা চায়না থেকে বাল্ক ইম্পোর্ট করা)  অ্যামাজন দিয়ে বিক্রি করা যায়। অ্যামাজন আপনার প্রোডাক্ট তাদের সাইটে লিস্ট করবে, বিক্রি করবে, এরপর ডেলিভারও করবে। তারা এই কাজের জন্য একটি মোটা কমিশনও রাখে, কিন্তু খেয়াল করতে হবে যে তারাই সব কঠিন কাজগুলো করছে।

FBA জনপ্রিয় হলেও, ফিজিক্যাল প্রোডাক্ট তৈরি করা অনেক কঠিন কাজ। আবার সস্তা চাইনিজ জিনিষের মার্কেটে চাহিদা কম। তাই সেল করা কঠিন। এমন  কোন জিনিষ ভেবে বের করুন যেটার চাহিদা আছে। তাহলে মানুষের কাছে তা বিক্রি করে আয়ের উৎস হবার সম্ভাবনা তৈরি হবে।

৬। টিশার্ট ও অন্যান্য পরিধান কাপড় ডিজাইন

টি শার্টের মার্কেট অনেক আগে থেকেই স্যাচুরেটেড কিন্তু টিশার্ট ডিজাইন করা অনেক সহজ একটি কাজ। তাই খুব সহজে ও সস্তায় এই কাজ করা শুরু করে দেয়া যায়। আপনি ক্রিয়েটিভ হলে একটার পর একটা টিশার্ট ডিজাইন করতে থাকুন। প্রথমে বিক্রি কয়েকটার বেশি না হলেও দেখা যাবে একটা না একটা ডিজাইন জনপ্রীয় হয়ে গেছে, তখন বিক্রি চট করে বেড়ে যাবে।

এই কাজের ৩টি ধাপ রয়েছেঃ ডিজাইন করা, স্টোরে সেল করা, এরপর প্রোডাক্টের মার্কেটিং করা।

  • ডিজাইন আপনি নিজে করতে পারেন, বা PhotoDune এর মত কোন স্টক ফটো সাইট থেকে ইমেজ কিনে করতে পারেন, বা এনভাটো স্টুডিও থেকে প্রফেশনাল কাউকে ভাড়া করে ডিজাইন করিয়ে নিতেও পারেন।
  • CafePress এর মত সাইট আপনি মার্কেটপ্লেস হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। ওরা বিক্রি করা, ডিজাইন প্রিন্ট করা, শিপমেন্ট ইত্যাদি একটা কমিশনের জন্য করে দিবে। আপনার নিজের হাত দিয়ে একটাও টিশার্ট ধরতে হবে না।
  • মার্কেটিং এর জন্য ফেসবুক ও গুগল অ্যাডসেন্স ব্যবহার করবেন। অ্যাড দেখে মানুষ প্রোডাক্টের ব্যপারে জানতে আগ্রহী হবে। এরপর তাদের কয়েকজনের কাছে আপনি আপনার প্রোডাক্ট বিক্রিও করতে সক্ষম হবেন।

নিজে ডিজাইন করতে চাইলে এক ফাঁকে আমাদের Tuts+ এর ডিজাইন ও ইলাসট্রেশন সেকশনটি দেখে নিতে পারেন। বা কিভাবে সাকসেসফুল টিশার্ট ডিজাইন করতে হয় কোর্সটি দেখতে পারেন।

Designing T-Shirts That Sell
Designing T-Shirts That Sell একটি প্রিমিয়াম কোর্স, এটি করতে এনভাটো টুটসের ফ্রি ট্রায়ালে সাইন আপ করুন।

৭। ThemeForest এর জন্য ওয়ার্দপ্রেস থিম বানানো

এটা হালজমানার ট্রেন্ড। এটি দিয়ে ভালো প্যাসিভ ইনকাম করার সম্ভাবনা আছে। এটাই আসলে এনভাটো মার্কেট এর সব চেয়ে জনপ্রিয় প্রোডাক্ট ক্যাটাগরি।

ব্লগ শুরু করতে চাইলে, প্রায় সব মানুষ ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করতে চায়। আর ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করলে, তাদের ভালো থিমও দরকার হয়। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ এনভাটো মার্কেটের ThemeForest এ থিম খুঁজে দেখেন। এই থিম বিক্রি করে থিম ডেভেলাপাররা ভালো আয় করে থাকেন।

থিম ব্যবসায় প্রথমে আয় অনেক কম থাকে, কিন্তু বেশিদিন ধরে এই কাজ করতে থাকলে, এটা দিয়ে একটা প্যাসিভ ইনকাম হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে যদি আপনি থিম বানাতে পারেন তবেই।

জেনে নিন কিভাবে এনভাটো এলিট ওয়ার্ডপ্রেস অথররা ThemeForest থেকে লাখ লাখ টাকা আয় করেনঃ

৮। ২০১৭ তে এনভাটো মার্কেটের অন্যান্য প্রোডাক্ট

এনভাটো মার্কেটে শুধু ওয়ার্ডপ্রেস থিমই বিক্রয় করা যায় না। PhotoDune এ স্টক ফটো, VideoHive এ স্টক ফুটেজ, AudioJungle এ সাউন্ড ক্লিপ, GraphicRiver এ গ্রাফিক রিলেটেড জিনিষ, CodeCanyon এ কোড ও ওয়েব অ্যাপের জিনিষ ও 3dOcean এ 3D ইলিমেন্ট বিক্রয় করা যায়। দক্ষ মানুষের যে কোন একটি কাজ বেছে নিতে অনেক অপশন রয়েছে এখানে।

যদি কিছু বানানোর দক্ষতা এই মুহূর্তে আপনার না থাকে তবে তা Envato Tuts+ এর কোর্স করে শিখে নিতে পারেন। এখানে ওয়ার্ডপ্রেস থিমিং, ফোটোশপ ইত্যাদির উপর কোর্স আছে। কয়েক মাস সময় নিয়ে কিছু শিখে আপনি সহজেই এনভাটো মার্কেটের Envato Elements এ নিজের একটি যায়গা করে নিতে পারেন।

Envato Elements এবং Envato Tuts+ ডিলের আজই সুযোগ নিন।

Envato Elements এ রেডি টু ইউজ টেমপ্লেট পাবেন, আরও পাবেন ফন্ট, অ্যাডঅন, ডিজিটাল এসেট ইত্যাদি। মাসিক ফি দিয়ে আনলিমিটেড টেমপ্লেট এখান থেকে ডাউনলোড করতে পারেন।

ব্লগ করেন, বা নিউজ লেটার, বা কোন নতুন ব্যবসা, Envato Elements এ সবার জন্যই কিছু না কিছু আছে।

এই মুহূর্তে Envato Elements এ যোগদান করলে Envato Tuts+ সম্পূর্ণ ফ্রি তে দেয়া হচ্ছে। তাই হাজার হাজার ডিজিটাল অ্যাসেটের সাথে আপনি হাজার ঘন্টার প্রিমিয়াম ভিডিও কোর্স ম্যাটিরিয়াল ফ্রি পাচ্ছেন।

Envato Elements Includes free access to Envato Tuts
এনভাটো ইলিমেন্টস মেম্বারশিপ এর সাথে Envato Tuts+ ফ্রি, যাতে প্রতি মাসে $১৫ সাশ্রয় হয়।

২০১৭ তে অনলাইনে প্যাসিভ ইনকাম শুরু করা অনেক সহজ, কিন্তু করা অনেক কঠিন।

অনেক উপায় আছে প্যাসিভ ইনকাম করার, কয়েক বছর কষ্ট করলে এটা বাস্তবায়ন করা সম্ভব। এই সপ্তাহেই আপনি আপনার টি শার্ট বিজনেস শুরু করতে পারেন, তাহলে এই কাজে আপনি সবার পেয়ে এগিয়ে থাকবেন।

শুধু একটি সাইট বানিয়ে রেখে দিলে সেতি দিয়ে ইনকাম হবে না। উপরে বলা কোন উপায়েই কাজ ছাড়া আয় করা সম্ভব না। কষ্ট করে সব গড়ে নিতে হবে। ওয়েবসাইটে কিভাবে ভিজিটর বাড়াতে হয়, এটি নিয়ে Udemy তে কোর্স করতে পারেন, বা ThemeForest এ থিম বিক্রির জন্য সেটা মার্কেটিং করতে হবে। নাহলে তেমন বেচাকেনা হবেনা।

পরবর্তীতে এই প্যাসিভ ইনকাম টিউটোরিয়াল সিরিজে, আমরা এখানে উল্লেখিত কয়েকটি উপায় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব, যেটা আপনার গোল সেট করতে সাহায্য করবে। এই পন্থাগুলো থেকে একটি বেছে নিয়ে আপ্নিও ২০১৭ তে প্যাসিভ ইনকাম শুরু করতে পারেন। আপনার কি কি কাজে দক্ষতা আছে সেটা কাগজে লিখুন, এরপর মিলিয়ে দেখুন কোন কাজটা করতে আপনার জন্য সুবিধা হবে।

Advertisement
Advertisement
Looking for something to help kick start your next project?
Envato Market has a range of items for sale to help get you started.