Unlimited Powerpoint templates, graphics, videos & courses! Unlimited asset downloads! From $16.50/m
Advertisement
  1. Business
  2. Sales
Business

একটা লম্বা ফর্মের সফল সেলস পেইজ কিভাবে গঠন করবেন

by
Difficulty:IntermediateLength:LongLanguages:

Bengali (বাংলা) translation by Syeda Nur-E-Royhan (you can also view the original English article)

কোন একদিন ফেসবুক ব্রাউজ করতে করতে হঠাৎই হোমফিডে আপনার চোখে পড়লো অ্যাপালেশিয়ান পাহাড়চূড়ায় উষ্ণ-যোগব্যায়াম করানো হয় , শ্লোক আর স্তবের গুনগুন আওয়াজ বাদে নিস্তব্ধ, কাঁচের কৌটা থেকে টাটকা ফলের রসে চুমুক দেওয়া যায় এমন একটা একটা ছুটি কাটানোর জায়গা। 

“ওহ কী চমৎকার!” আপনি হয়তো মনে মনে ভাবলেন (যেটা আপনি সব সময়ই করেন এমন কোন বিজ্ঞাপন চোখে পড়লে), “এমন একটা ছুটি কাটানোর জায়গায় কতোদিন ধরে যেতে চাচ্ছি!”

আপনি বিস্তারিত দেখার জন্য ক্লিক করলেন আর দেখলেন পেইজে আর কিছুই নেই একটা বিশাল চকমকে ‘এখনই কিনুন’ লেখা বাটন ছাড়া।

“এখনই কিনুন! এখনই কিনুন! এখনই কিনুন!”

“ধুর!”

আপনি যতো দ্রুত সম্ভব ক্রস বাটনে ক্লিক করে ব্রাউজারটি বন্ধ করে দিয়ে মনে মনে প্রতিজ্ঞা করলেন যোগব্যায়াম বা কাঁচের কৌটা সংক্রান্ত আর কোন কিছুইতেই কখনও ভুলেও ক্লিক করবেন না।

ওই বিশাল লাল রঙের বাটনসহ দুঃস্বপ্নের মতো ওই পেইজটার কথা জানতে চান? ওটা কোন ল্যান্ডিং পেইজ বা সেলস পেইজ ছিল না। ওটা ছিল আপনাকে ভয় দেখিয়ে তাড়ানোর একটা পেইজ।

আর আপনি নিশ্চয়ই আপনার ব্যবসায় কখনোই এমন কিছু ব্যবহার করতে চাইবেন না। যদি না আপনি কখনোই কিছু বিক্রি করতে না চান। সেই ক্ষেত্রে যে কোন ভাবেই হোক...

এখন আপনার ক্রেতারা যাতে আপনার সেলস পেইজ দেখে চিৎকার করতে করতে পালিয়ে না গিয়ে বরং আপনার অফারের প্রতি আকর্ষণ বোধ করে এমন একটা লম্বা ফর্মের সেলস পেইজ গঠন করার শিখে নেওয়ার আগে চলুন প্রথমে কিছু পরিভাষা শিখে নেই যেগুলো মার্কেটিঙের জগতে প্রয়োগ করা হয় এবং এই টিউটোরিয়ালেও আপনাকে শিখানোর জন্য ব্যবহার করা হয়েছে।

Long form sales pages
লম্বা ফর্মের সেলস পেইজের কাঠামো – ইলাস্ট্রেশন

সেলস পাইজ এবং ল্যান্ডিং পেইজ: দীর্ঘ এবং ছোট দুই ধরণেরই

আপনি হয়তো লোকমুখে হলেও ল্যান্ডিং পেইজ আর সেলস পেইজের কথা শুনেছেন। কিন্তু এই পেইজগুলো কী এবং এদের মধ্যে পার্থক্যই বা কী?

ল্যান্ডিং পেইজ: আপনার ব্যবসার একটা স্বাচ্ছন্দ্যপূর্ণ পরিচিতি

নাম শুনেই বুঝা যায়, ল্যান্ডিং পেইজ হচ্ছে  আপনার ব্যবসার ওয়েবসাইটের সেই পেইজটি যেখানে কোন এক্সটারনাল লিঙ্কের মাধ্যমে অতিথিরা সরাসরি প্রবেশ করবেন। সেই এক্সটারনাল লিঙ্কের মধ্যে থাকতে পারে বিজ্ঞাপন, কোন গেস্ট পোস্টের বাইলাইন, বা সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করা যে কোন কিছু। 

আপনার ওয়েবসাইটের হোমপেইজ বা অন্য যে কোন পেইজে ক্রেতাদের সরাসরি নিয়ে গেলে তারা সীমাহীন তথ্যের ভিরে খেই হারিয়ে ফেলতে পারেন। তাই আপনি একটি ল্যান্ডিং পেইজ তৈরি করতে পারেন যেখানে ক্রেতারা একটা নির্দিষ্ট চ্যানেলের মাধ্যমে আপনার ব্যবসা সম্পর্কে জানতে পারবে।

এই নির্দিষ্ট চ্যানেলে কিছু দরকারি তথ্য থাকবে (ইবুক, ভিডিও পাঠ, পোস্টের সিরিজ, বা অন্যান্য যে কোন উপায়ে)। পাঠক বা অতিথিরা তাদের নাম এবং ইমেইল অ্যাড্রেসের মতো কোন কিছুর বিনিময়ে আপনার নিয়মিত মেইলিং লিস্টে সাবস্ক্রাইব করতে পারবে।

একটা সাধারণ, আঁটসাঁট, এবং কার্যকরী ল্যান্ডিং পেইজ হিসেবে রমিত শেঠির ‘আই উইল টিচ ইউ টু বি রিচ’ ওয়েবসাইটটি একটি উৎকৃষ্ট উদাহরণ। অতিথিরা যখন হলুদ রঙের “গেট দ্যা বেস্ট অফ মাই বুক ফর ফ্রি” বাটনে ক্লিক করেন তখন তারা তাদের নাম আর ইমেইল অ্যাড্রেসের বিনিময়ে বইটি বিনামূল্যে পেয়ে যান।  ব্যাস। বিনিময় সম্পন্ন হয়ে গেলো। ল্যান্ডিং সফল হয়ে গেছে।

Ramit Sethi landing page example
রমিত শেঠির ল্যান্ডিং পেইজের নমুনা (সোর্স)।

একটা সরল ল্যান্ডিং পেইজের উদ্দেশ্য হচ্ছে সম্ভাব্য ক্রেতার কাছে তখনই কোন কিছু “বিক্রি” না করে বরং কিছু মূল্যবান তথ্য বিনামূল্যে তাৎক্ষণিকভাবে সরবরাহ করা। ল্যান্ডিং পেইজের উদ্দেশ্য হচ্ছে সাধারণ অতিথিদের ইমেইল সাবস্ক্রাইবার হিসেবে রূপান্তর করা যাতে করে সময়ের সাথে সাথে তাদের ক্রেতায় পরিণত করা যায়।  এর বেশিও না, এর কমও না।

টিউটোরিয়ালের পরবর্তী অংশে আমরা ল্যান্ডিং পেইজের বদলে সেলস পেইজের দিকে মনোযোগ দিবো (পার্থক্য এবং সংজ্ঞা নিচে দেওয়া হয়েছে)।  তবে আপনি যদি আরও মানুষকে আপনার ব্যবসার সাথে পরিচিত করতে বিনামূল্যে যে সব অফার দেওয়া হয়েছে সেগুলো সম্পর্কে জানাতে মনোমুগ্ধকর ল্যান্ডিং পেইজ তৈরি করা শিখতে চাইলে নিচের টিউটোরিয়ালগুলো দেখে নিন:

সেলস পেইজ: দলিলের শেষ খোঁচা

আপনার অনলাইন ব্যবসায় একজন অতিথির জন্য টাকা দিয়ে নিশ্চিত করা প্রতিশ্রুতির চাইতে বড় কিছু হতে পারে না। দিন শেষে মানুষ যদি টাকা দিয়ে আপনার অফার কেনার নিশ্চয়তা না দেয় তাহলে আপনার ব্যবসা আসলে চলবে না। এটি শুধুই একটা পরামর্শ কলাম বা ব্লগ হয়ে থাকবে।

কোন নির্দিষ্ট একটা অফার প্রমোট করতে চাইলে সবচাইতে ভালো উপায় হচ্ছে একটা ডেডিকেটেড সেলস পেইজে শুধুমাত্র সেই অফারটি নিয়ে বিস্তারিত বর্ণনা থাকবে যাতে করে একজন সম্ভাব্য কাস্টমার সহজেই সব তথ্য পেতে পারেন।

আপনার অন্যান্য অফার সম্পর্কে কোন বাড়তি তথ্য দিবেন না। আপনার ব্লগ পোস্ট বা অন্যান্য কোন বিষয় নিয়ে বিভ্রান্তিকর বার্তা দিবেন না। আপনার ব্যবসা বা জীবনের সংগ্রামের গল্পও না, শুধুই যেই অফারটি সম্পর্কে জানতে চাইছে সেটি সম্পর্কে তথ্য দিবেন।     

একদিন থেকে দেখলে সেলস পেইজও এক ধরণের ল্যান্ডিং পেইজ কারণ অতিথিরা এক্সটারনাল লিঙ্ক থেকে আপনার ওয়েবসাইটের ওই সমস্ত পেইজেই যাবেন। কিন্তু যেহেতু এই পেইজগুলোর উদ্দেশ্য একদম সুনির্দিষ্ট এবং গুরুত্বপূর্ণ (বিক্রি করার উদ্দেশ্য), কাজেই ইন্টারনেট-পূর্ব যুগে যখন শামুকের গতিতে সেলস লেটার পাঠানো হত বিভিন্ন কোম্পানি থেকে, সেই সময়ের আলোকেই আমরা এগুলোকে ল্যান্ডিং পেইজ না বলে সেলস পেইজ বলি।

একটি সেলস পেইজের উদ্দেশ্য হচ্ছে অতিথিদের সম্ভাব্য ক্রেতায় পরিণত করা। এই উদ্দেশ্য অর্জন করতে হলে আপনার সেলস পেইজে ল্যান্ডিং পেইজের অতিথির ইমেইল অ্যাড্রেস চাওয়ার চাইতে আরও বেশি সন্তোষজনক এবং প্ররোচনামূলক কৌশল গ্রহণ করতে হবে।

এই কারণেই সেলস পেইজগুল সাধারণ ল্যান্ডিং পেইজের চাইতে লম্বা হয়। কিন্তু এগুলো কতো লম্বা হওয়া বাঞ্ছনীয়?

সব সেলস পেইজই একই আকারের হয় না

তার মানে এই না যে কোন কোন সেলস পেইজ প্রকৃতিগতভাবেই অন্যান্য গুলোর চাইতে ভালো মানের হয়। এটা সম্পূর্ণই কন্টেন্ট আর সেলস পেইজের আকৃতির উপর নির্ভর করে। (এই টিউটোরিয়ালের শেষে আপনি প্রভাবশালী সেলস পেইজ তৈরি ও গঠন করতে শিখে যাবেন। কাজেই ভয় পাবেন না!)

বরং বলা যায় যে সব সেলস পেইজ একই দৈর্ঘ্যের হয় না। কিছু সেলস পেইজ ছোট হয়। অনেকটা সাধারণ ল্যান্ডিং পেইজের মতোই। কোনগুলো লম্বা হয়, আবার কোনগুলো হয় বিশাল লম্বা। কখনও কখনও দৈর্ঘ্যে হাজার এমনকি দশ হাজার শব্দও হতে পারে!

তবে আপনার সেলস পেইজের মান বা কার্যকারিতা মোটেও এটির দৈর্ঘ্যের উপর নির্ভর করে না বরং এটির অতিথিকে সম্ভাব্য ক্রেতায় পরিণত করার হারের উপর নির্ভর করে। যদি বিক্রি হয়, তাহলে তা সফল। আর বিক্রি না হলে, সফল না।

কাজেই আপনার সেলস পেইজের জন্য উপযুক্ত দৈর্ঘ্য কোনটি?

আপনার পণ্যের দাম কতোটা চড়া?

একটা ছোট্ট উপমা দিয়ে বুঝাই: আপনি যদি সেলস পেইজগুলোকে এক ধরণের ল্যান্ডিং পেইজ হিসেবে ধরেন, তাহলে ভেবে দেখুন, আপনার অফারের দাম যতো চড়া হবে অতিথির জন্য “আঁতকে” ওঠার মাত্রাও ততো বেশি হবে।

আপনি যদি ৫ ডলারের একটা ইবুক বিক্রি করতে চান তাহলে আপনার অতিথিকে সেরফ ছোট্ট একটা ধাপ পেড়িয়ে ওয়ালেট থেকে ৫ ডলার বের করতে হবে। এক্ষেত্রে তাঁকে খুব বেশি প্রভাবিত করার মতো প্রস্তুতির দরকার নেই। ৫ ডলারের কেনাকাটার জন্য একটা সহজ ব্যাখ্যাই যথেষ্ট।

কিন্তু আপনার যদি ৫০০ ডলারের সেবা বিক্রয় করার থাকে তাহলে আপনি কিন্তু আপনার অতিথিদের একটা বড় ধরণের বিনিয়োগ করতে বলছেন। কাজেই আপনার সম্ভাব্য ক্রেতা যাতে খুব বেশি ধাক্কা না খায় সেই জন্য যথেষ্ট পরিমাণ প্রস্তুতি রেখে ব্যাখ্যা তৈরি করতে হবে।

কতোটা “প্রস্তুতি” নিবেন সেটার উপর নির্ভর করে আপনার সেলস পেইজের দৈর্ঘ্য কতোটুকু হবে। আপনার দাম যতো চড়া হবে ততোই বেশি তথ্য আর প্ররোচনা দিয়ে আপনার অতিথিকে ক্রেতায় পরিণত করতে হবে।

আর আপনি যদি আপনার অতিথিদের ৫,০০০ ডলারের কোন কেনাকাটার জন্য প্ররোচিত করতে চান তাহলে বরং সেলস পেইজটিকে এমন গুরুগম্ভীরভাবে প্রস্তুত করুন যাতে অতিথিরা কোনকিছু না কিনেই সেলস পেইজ থেকে বের হয়ে না যায়। আবার পেইজে এসে দামের ট্যাগ দেখে সাথেই সাথেই দামের ধাক্কায় হাড়গোড় যেন না ভাঙ্গে (আর সেই সাথে কেনাকাটার প্রতিশ্রুতিও) সেই ব্যবস্থাও করতে হবে।

আপনার দর্শক-শ্রোতা কতোখানি সচেতন?

আপনার সেলস পেইজের দৈর্ঘ্যের ক্ষেত্রে দামের সূচক একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। কিন্তু লিখতে বসার আগে শুধু এই ব্যাপারটিই মাথায় রাখতে হবে এমন না। ব্যাপারটা এমন নয় যে আপনি নিশ্চিত হয়ে বলতে পারবেন যে ৫ ডলারের অফারে ৫০০ শব্দের সেলস পেইজ তৈরি করতে হয় আর ৫,০০০ ডলার অফারের জন্য ৫০,০০০ শব্দের।

এমন কোন জাদুকরী সংখ্যা নেই যেটি দিয়ে আপনি আপনার ক্রেতায় রূপান্তরের হার চারগুণ, পাঁচগুণ বা দশগুণ করে ফেলতে পারবেন এক লাফে।

যেটা গুরুত্বপূর্ণ তা হচ্ছে বিনিময় মূল্য

আপনার দর্শকশ্রোতা যদি মনে করে যে আপনি যে পণ্য বা সেবা অফার করছেন সেটির মূল্য ডলারে যা দেখিয়েছেন তার বরাবর তাহলে তারা এই ঝুঁকি গ্রহণ করবে। আর যদি তারা মনে করে যে মূল্য বরাবর না, তাহলে তারা অফার থেকে সরে যাবে।

কাজেই আরেকটি যে বিষয় সেলস পেইজ তৈরির সময় মাথায় রাখতে হবে তা হল আপনার দর্শকশ্রোতা আপনার ব্যবসা এবং তার মূল্যমান সম্পর্কে অবহিত কিনা। অন্য কথায় বলতে গেলে, দর্শকশ্রোতার সচেতনতা বলতে আপনি আপনার অফারের মাধ্যমে যে সমস্যার সমাধান করতে চাচ্ছেন, আপনি যে অফারটি উপস্থাপন করছেন এবং এই অফার দেওয়ার ক্ষেত্রে আপনার নিজেকে দক্ষ হিসেবে প্রমাণ করার ক্ষেত্র, সবকিছু মিলিয়ে বুঝায়।  

কালজয়ী কপিরাইটার ইউজিন শোয়ার্টজ তার ‘ব্রেকথ্রু অ্যাডভারটাইজিং’-এ দর্শকশ্রোতার সচেতনতার বিষয়টি ব্যাখ্যা করেছেন। শোয়ার্টজ লিখেছেন, বাজারের ক্ষেত্রে সচেতনতা পাঁচটি স্তরে কাজ করে (এবং আমি সেগুলোকে এখানে উপস্থাপন করছি। কপিব্লগার ব্রায়ান ক্লার্ক আগেই এই বিষয়গুলো সুন্দরভাবে সংক্ষেপে বলে গিয়েছেন):

  1. সবচাইতে বেশি সচেতন যারা: আপনার সম্ভাব্য ক্রেতা আপনার পণ্য সম্পর্কে আগে থেকেই জানে এবং সে এখন শুধু আপনার অফার করা “ডিল” সম্পর্কে জানতে চায়।
  2. পণ্য সম্পর্কে সচেতন: আপনার সম্ভাব্য ক্রেতা আপনি কী বিক্রি করছেন তা জানে কিন্তু তার এটি প্রয়োজন কিনা সেই ব্যাপারে নিশ্চিত না।
  3. সমাধান সম্পর্কে সচেতন: আপনার সম্ভাব্য ক্রেতা সে নিজে শেষমেশ কী চায় তা জানে, কিন্তু আপনার পণ্য যে এটা সরবরাহ করতে পারে তা জানে না।
  4. সমস্যা সম্পর্কে সচেতন: আপনার সম্ভাব্য ক্রেতা জানে যে তার কিছু একটা সমস্যা হচ্ছে কিন্তু সে জানে না যে এই সমস্যার কোন সমাধান আছে কি না।
  5. সম্পূর্ণ অসচেতন: তার সম্ভবত নিজের পরিচয় আর মতামত ছাড়া আর কোন জ্ঞানই নেই এই বিষয়ে।

আপনার ক্রেতা যতো বেশি আপনার অফার করা সমাধান সম্পর্কে সচেতন থাকবে আপনাকে ততোই কম পরিশ্রম করে তাদের প্রভাবিত করতে হবে। তারা যতো কম সচেতন হবে আপনাকে ততো বেশি তাদের প্রভাবিত করার চেষ্টা করতে হবে যাতে তারা পণ্যটি কিনে।

যেমন, অ্যাপলের মতো ব্র্যান্ডের আমাদের কাছে তাদের নতুন ভার্সনের বাজারজাতকরণের জন্য ক্রেতাকে প্রভাবিত করার কোন দরকারই হয় না। তাদের যা করতে হয় তা হল শুধুমাত্র নতুন ভার্সন মুক্তি পাওয়ার দিন ঘোষণা করা। আর তাতেই আমরা শহরের রাস্তায় মাইলের পর মাইল দাঁড়িয়ে কয়েকদিন আগে থেকে অ্যাডভানস দিয়ে অপেক্ষা করতে থাকি। ডিল বিক্রি হয়ে গেছে। (কিন্তু তারপরেও তারা এখনও সুন্দর সব লম্বা ফর্মের সেলস পেইজ তৈরি করে। বলা যায় না কখন কাজে লাগে।)

আপনি যদি আপনার কাজের ক্ষেত্র বা শিল্পখেত্রে ইতোমধ্যেই একজন মহাতারকা না হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে হয়তো অ্যাপলের চাইতে অনেক বেশি গভীরভাবে ক্রেতাদের প্রভাবিত করতে হবে যাতে তারা আপনার নতুন পণ্য বা সেবা ওই সদ্য মুক্তি পাওয়া আইফোনের দামে কিনতে রাজি হয়। আপনাকে আপনার অফারের উপকারিতা বুঝাতে হবে মানুষজনকে। আপনার কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করতে হবে, আপনি কেন তাদের সেরা অপশন সেটা বুঝিয়ে বলতে হবে। তাদের জীবন কিভাবে আপনার পণ্য বা সেবার কারণে বদলে যাবে তা দেখাতে হবে। আপনার দেওয়া সমাধানে যে অন্যদের জীবন আমূল পাল্টে গেছে তার প্রমাণ দেখাতে হবে। আর তার পর আপনি আপনার পণ্য তাদের কাছে বিক্রি করার কথা বলতে পারেন।

কাজেই আপনার সেলস পেইজ কতোটা লম্বা হওয়া উচিত?

আপনার পণ্য বা সেবার মূল্যমান অন্যদের বুঝাতে এবং বিক্রি করতে যতোখানি লম্বা হওয়া প্রয়োজন।

আপনার কি মনে হচ্ছে আপনার কলেজের প্রফেসরকে যখন জিজ্ঞেস করেছিলেন আপনার উত্তরপত্র কতো বড় হতে হবে তখন ঠিক একই উত্তর পেয়েছিলেন?

“আপনার বক্তব্য প্রতিষ্ঠা করতে যতোটুকু প্রয়োজন”।

সত্যি কথা বলে এই উত্তরটির সবচাইতে হতাশাজনক দিক হচ্ছে কথাটা সত্যি।

আপনার সেলস পেইজ কতো লম্বা হতে হবে সেই বিষয়ে কোন বাঁধাধরা নিয়ম নেই। আপনার বক্তব্য প্রতিষ্ঠা করতে, অতিথিদের কাছে প্রমাণ করতে যে আপনিই সেরা অফারটি দিচ্ছেন বা আপনার বাই বাটনে নগদ টাকা জমা দেওয়ার বিনিময়ে ডিল সম্পন্ন করার জন্য তাদের প্রভাবিত করতে যতোটুকু জায়গা প্রয়োজন এটি ততোতুকুই লম্বা হওয়া বাঞ্ছনীয়।

অন্য কথায় বলতে গেলে: আপনি যে পণ্য বা সেবা অফার করছেন সেটির ব্যবহারিক মূল্য আপনি ডলারে যা চেয়েছেন তার সমান এটা প্রমাণ করার জন্য যতোটুকু জায়গার প্রয়োজন।

কিন্তু একটি সাবধান বাণী রয়েছে: আপনার পণ্য বা সেবা বিক্রি করতে যতোটুকু কথা বলতে হয় ঠিক ততোটুকুই বলবেন। এর বাইরে একটা শব্দও না।

লম্বা ফর্মের সেলস পেইজ যে ছোট ফর্মের সেলস পেইজের চাইতে ভালো বা তার উল্টোটা, এমন কোন কথা নেই। আপনার দর্শকশ্রোতার সচেতনতা এবং আপনার মূল্য বুঝানোর জন্য যে জায়গার প্রয়োজন সে সবকিছু হিসাব করে আপনার নির্ধারিত দামের অফারটি বিক্রি করার জন্য যথাযথ দৈর্ঘ্য ঠিক করতে হবে। অযথা জায়গা ভরাট করবেন না, কোন দ্বিধা রাখবেন না, কোন বাড়তি শব্দ ব্যবহার করবেন না।

কাজেই আপনার ১৯ ডলারের গ্রাফিক প্যাকেজ বা ভিডিও এডিটিং ইমেইল কোর্স বিক্রি করার জন্য আমেরিকার পরবর্তী সেরা উপন্যাসটি লিখতে বসার আগে চিন্তা করে নিন এই একই জিনিস বাজারে অন্য কোথাও কী দামে বিক্রি হচ্ছে এবং আপনার ক্রেতারা আপনার দেওয়া সমাধান বা আপনার দক্ষতা সম্পর্কে কতোটুকু জানে।

আর যথাযথ দৈর্ঘ্যে আপনার পেইজটি লেখা হল কিনা তা নিয়ে খুব বেশি চিন্তা করবেন না। অনেক দারুণ সব ল্যান্ডিং পেইজ টেম্পলেট পাওয়া যায় যেগুলোতে দৈর্ঘ্য এবং ডিজাইন নিয়ে আপনি স্বতঃস্ফূর্তভাবে কাজ করতে পারবেন এবং নিজের প্রয়োজন মিটিয়ে কাজ সারতে পারবেন। আপনার যা করতে হবে তা হল আপনার পছন্দেরটি বেছে নেওয়া!

আপনার দর্শকশ্রোতার জন্য আপনার অফারের মূল্য আসলে কতোটুকু?

জাদু দেখিয়ে দিবেন কিভাবে: বা একটা সফল সেলস পেইজ তৈরি করবেন যেভাবে

দৈর্ঘ্য যাই হোক না কেন, সব সেলস পেইজেই তাদের নিজেদের বক্তব্য প্রতিষ্ঠা করার জন্য এবং ক্রেতা তৈরি করার জন্য একই ধরণের মৌলিক উপাদান ব্যবহার করে। লম্বা পেইজগুলো তাদের নিজেদের বক্তব্য প্রতিষ্ঠার জন্য এর মধ্যে কতগুলো উপাদানের ক্ষেত্রে বিস্তারিত বর্ণনা দেয়। অন্যদিকে ছোট পেইজগুলো শুধুমাত্র মৌলিক বিষয়বস্তু উল্লেখ করে পরবর্তী অংশে চলে যায়।

একবার যদি আপনি এই উপাদানগুলো এবং তাদের কাজ বুঝে ফেলেন তাহলে আপনার অফার তুলে ধরতে যেসব জায়গায় বিস্তারিত বর্ণনা দেওয়া দরকার সেগুলো চিহ্নিত করে আপনার সেলস পেইজের দৈর্ঘ্য নির্ধারণ করতে পারবেন। আবার যেখানে অল্প কথায় কাঝয়ে যাবে সেখানে ছোটখাটো বিবরণ ব্যবহার করবেন।

ক্রেতায় পরিণত করার সুবিধার্থে, আমরা সেলস পেইজের এই মৌলিক উপাদানগুলোকে তিনটি মূল শ্রেণিতে বিভক্ত করবো: বিষয়বস্তু, কাঠামো, এবং নকশা।

প্রথমে আমরা বিষয়বস্তু সম্পর্কে জানবো। আপনার সেলস পেইজে কী বলতে হবে তা দেখব। তারপর চলে যাবো কাঠামোতে। ক্রেতার সংখ্যা বাড়াতে কখন ও কিভাবে বলবেন। সবশেষে, আমরা নকশার মৌলিক বিষয়াদি নিয়ে কথা বলবো। কারণ কারও সিদ্ধান্ত আপনার অনুকূলে নিতে সৌন্দর্যের ভূমিকা আপনি যতোটা ভাবছেন তার চাইতে বেশিই।

বিষয়বস্তু

এই টিউটোরিয়ালের শুরুতে, আমরা এমন একটি পরিস্থিতি কল্পনা করে নিয়েছি যেখানে ওয়েব আপনাকে ‘এখনই কিনুন!’ লেখা বিশাল লাল রঙের জ্বলন্ত একটি বাটন সম্বলিত ল্যান্ডিং পেইজে নিয়ে যাবে কোন ধরণের ব্যাখা বা ভূমিকা ছাড়াই।

আমরা সবাই খুব ভালো করেই জানি যে ক্রেতাদের প্রভাবিত করতে হলে এর চাইতে একটু বেশি কিছু লেখা জরুরী। কিন্তু কী লিখবেন আপনি? শুরুই বা করবেন কিভাবে? কী কী বিষয় যোগ করবেন আর কী বাদ দিবেন?

নিচের অধ্যায়টি আপনাকে সেলস পেইজের জন্য প্রয়োজনীয় সমস্ত তথ্যের যোগান দিবে এবং কিভাবে লেখা শুরু করতে হবে তা দেখিয়ে দিবে।  একবার চেষ্টা করেই দেখুন আর নিজেকে ঠিক হচ্ছে নাকি ভুল এই ভাবনায় নিজের চিন্তাভাবনাকে কাটছাঁট না করে উত্তর লিখতে বসে যান।  

আপনি প্রশ্নের উত্তরে যা লিখবেন তা যেন কোনভাবেই আপনার সেলস পেইজের লেখার মতো না হয়। তবে আপনার পেইজের কাঠামোর মূল উপাদান হিসেবে যা লিখবেন সেটা গঠন করা হয়ে যাবে এর মাধ্যমে। এ বিষয়ে আমরা পরবর্তী অধ্যায়ে আলোচনা করবো। মূল কথা হচ্ছে আপনাকে লেখা শুরু করতে হবে। পরবর্তীতে সেটি যে কোন সময় এডিট করাই যাবে।

ধাপ ১: আপনার দর্শকশ্রোতা এবং তাদের সচেতনতার স্তর চিহ্নিত করুন।

আপনার সেলস পেইজের মাধ্যমে আপনি কাদের কাছে পৌঁছাতে চেষ্টা করছেন? সেই নির্দিষ্ট কিছু দর্শকশ্রোতার সাথে কথা বলার উদ্দেশ্য কী? তারা কি জানে আপনি কে? তাদের বেশিরভাগ কি নিয়মিত ক্রেতা? তারা কি প্রত্যেকেই নতুন ক্রেতা?

চলুন কিছু সময়ের জন্য মনে করি আপনি একজন পার্সোনাল ট্রেইনার। দুইটি ভিন্ন চিত্র দেওয়া হল:

চিত্র ১

আপনি আপনার বিনামূল্যে বিতরণ করা পরামর্শ এবং ৫ থেকে ১৯ ডলার মূল্যের ভিডিওর মাধ্যমে গত এক বছরে বেশ বড় একটা ভক্তদল তৈরি করে ফেলেছেন। আপনার নিয়মিত ক্রেতার তালিকায় প্রায় ৫০০ মানুষ এবং ইমেইল সাবস্ক্রাইবারের তালিকায় আরও ১৫০০ মানুষ রয়েছে। 

এখন আপনার তৈরি একটি নতুন অনলাইন ট্রেইনিং প্রোগ্রামের জন্য সেলস পেইজ লিখবেন যেখানে নতুন নতুন সব ভিডিওর মাধ্যমে ক্রেতারা এক মাসের প্রতিটি দিন আপনার সাথে ব্যায়াম করার সুযোগ পাবে আর গ্রীষ্মের ছুটির জন্য নিজেদের তৈরি করে ফেলতে পারবে।  এই প্রোগ্রামে প্রত্যেকের জন্য আলাদা খাদ্য পরিকল্পনা এবং ব্যক্তিগত অনলাইন মিটিঙের ব্যবস্থা থাকবে। আপনি এর মূল্য নির্ধারণ করলেন ১৯৯ ডলার।

কতোখানি জোর দিয়ে আপনার ক্রেতাদের প্রভাবিত করতে হবে বলে মনে করছেন? বেশ ভালো রকম তো বটেই। আপনার বর্তমানের ১৯৯ ডলার মূল্য আপনার সবচাইতে বেশি মূল্যের ভিডিও যেটা ১৯ ডলারে বিক্রি হয় সেটির চাইতে অনেক বেশি। কাজেই এই নতুন সেলস পেইজটি স্বাভাবিকভাবেই আগে তৈরি করা আপনার অন্য যে কোন সেলস পেইজের চাইতে লম্বা হবে। কিন্তু আপনি আত্মবিশ্বাসী যে আপনার দর্শকশ্রোতা আপনার কাজ এবং ফলাফল সম্পর্কে ভালোভাবে অবগত যেহেতু তারা অতীতেও আপনার কাছ থেকে সেবা নিয়েছে। কাজেই নিজের বক্তব্য প্রতিষ্ঠা করার জন্য আপনার খুব বেশি পরিশ্রম করতে হবে না। শুধুমাত্র কিছু প্রশংসাপত্র আর কয়েকটি সাফল্যের গল্প জুড়ে দিলেই আপনার কাজ হয়ে যাবে।

চিত্র ২

কোন এক বিকল্প পৃথিবীতে, ধরে নিন, আপনি সেই একই দক্ষতা এবং জ্ঞানসম্পন্ন পার্সোনাল ট্রেইনার। তবে আপনি মাত্রই অনলাইনে কাজ শুরু করেছেন এবং আপনার ইমেইল তালিকায় প্রায় ৩০০ মানুষ রয়েছে। এই তালিকার কেউ আপনার কাছ থেকে এখন পর্যন্ত কিছুই কিনেনি কারণ আপনি শুধুই আপনার ব্লগ আর কিছু ফ্রি ভিডিও প্রকাশ করেছেন।

১৯৯ ডলারের মাসব্যাপী এই ব্যায়াম আর পুষ্টির প্রোগ্রামটিই এই পৃথিবীতে আপনার প্রকাশিত প্রথম অফার। আপনার নিজস্ব দর্শকশ্রোতার পাশাপাশি আপনি অন্যদের জন্য গেস্ট পোস্ট এবং ফ্রি ব্যায়ামের ভিডিও তৈরি করার পরিকল্পনা করছেন যাতে করে নতুন ক্রেতারা আপনার অফারের প্রতি আগ্রহী হয়। 

এখন আপনাকে কতোখানি জোর দিয়ে তাদের বুঝাতে হবে? বেশ খানিকটা, তাই নয় কি? যদিও আপনার কাজের প্রতি আগ্রহী এক দল দর্শকশ্রোতা আপনার রয়েছে তারপরেও তারা তো আপনার কাছ থেকে এখন পর্যন্ত কিছুই কিনেনি। তারা আপনার সম্পর্কে জানে কিন্তু আপনার সমাধানের কার্যকারিতা নিয়ে খুব বেশি কিছু জানে না। সেই সাথে, আপনি আপনার সেলস পেইজে নতুন অতিথিদের আনাগোনা বৃদ্ধি করতে চান যারা কখনও আপনার সম্পর্কে শুনেইনি বা আপনার কোন কাজ দেখেনি। আপনার নিজেকে অবশ্যই তাদের কাছে আপনার যোগ্যতা এবং আপনার সেবা ক্রয়ের উপকারিতা প্রমাণ করে দেখাতে হবে।

আপনি বুঝতেই পারছেন যে সেলস পেইজের এই সংস্করণে একদম একই রকম প্রোগ্রাম হওয়া সত্ত্বেও অতিথিদের কাছে আপনার মূল্য বৃদ্ধি করতে এবং তাদের সম্ভাব্য ক্রেতায় পরিণত করতে এই পেইজটিকে আরও লম্বা করে তৈরি করতে হবে।

শুরু করে দিন

আপনার দর্শকশ্রোতা একাধিক রকমের হতে পারে। তবে তাদের মূল অংশ এবং বেশিরভাগ দর্শকশ্রোতা কন ধরণের তা চিহ্নিত করতে হবে। শুরু করার আগে তারা আপনার ব্যবসা এবং সমস্যার সমাধান সম্পর্কে কতোটুকু জানে তা বুঝে নিতে হবে।

এখানে ফিটনেস ডায়েট বুকের লম্বা ফর্মের সেলস পেইজের একটি নমুনা দেওয়া আছে যেটি তার আদর্শ দর্শকশ্রোতাদের চিহ্নিত করতে এবং তাদের সচেতনতার মাত্রা যাচাই করতে সক্ষম। 

Targeted sales page example
টার্গেট করা সেলস পেইজের নমুনা (উৎস)

খেয়াল করে দেখবেন যে এই লেখার কোথাও ওজন কমাতে চাচ্ছে বা সম্প্রতি কয়েক পাউন্ড ওজন বেড়েছে এমন কারও উদ্দেশ্যে কথা বলা হয়নি। এই লেখাটি হালকা পাতলা এবং পুরুষালী হতে চায় এমন সব ফিটনেস ডায়েটে অভ্যস্ত লোকজনকে উদ্দেশ্য করে তৈরি। এ কারণেই এখানে “দ্বিধা দূর করা” এবং “জনশ্রুতি” মিথ্যা হিসেবে প্রমাণ করার কথা বলা হয়েছে। এই নতুন ডায়েট পদ্ধতি বিক্রি করার জন্য দর্শকশ্রোতারা আগেও শুনেছেন এমন সব উপদেশ এই পেইজে খণ্ডন করা হবে এবং নিজস্ব নতুন সব নিয়ম প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।

আপনি যখন আপনার দর্শকশ্রোতাদের চিহ্নিত করে ফেলবেন তখন আপনি জেনে যাবেন কিভাবে এবং কেন তাদের সাথে কথা বলতে হবে। সচেতনতার মাত্রায় আপনার দর্শকশ্রোতার স্থান কোথায়? তাদের প্রভাবিত করতে হলে আপনাকে কতোখানি জোর দিয়ে কথা বলতে হবে?

ধাপ ২: আপনার বৈশিষ্ট্যগুলোর তালিকা তৈরি করুন “যাতে করে” এর উপকারিতা সম্পর্কে বলতে পারেন।

সেলস পেইজের সবচাইতে বড় ভুলগুলোর একটা হচ্ছে তারা পণ্য বা সেবার বৈশিষ্ট্যের প্রতি খুব বেশি লক্ষ্য রাখে এবং ক্রেতার কাছে এর উপকারিতা সম্পর্কে প্রায় কিছুই বলে না। তার মানে এই না যে ব্যবসার মালিকেরা তাদের পণ্য বিক্রি করতে বা দর্শকশ্রোতার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারেন না। বরং এটি আপনার অফারের “খুব বেশি কাছাকাছি” হওয়ার একটি লক্ষণ মাত্র।

আপনার দর্শকশ্রোতার জন্য কোন নতুন পণ্য বা সেবা তৈরি করার একদম প্রথম দিন থেকেই আপনি এটা করছেন তাদের কোন না কোন উপকারে আসার জন্য। আপনি সচেতনভাবে উপলব্ধি না করলেও এটাই করছেন।

আপনি তাদের ব্যবসার সেট আপ করে দিতে এবং প্রসার ঘটাতে ওয়েব ডিজাইন অফার করেন। আপনি ভিজ্যুয়াল গল্প বলার মাধ্যমে তাদের ব্যবসা বৃদ্ধি করতে ভিডিও এডিটিং সেবা অফার করেন। আপনি আতদের জীবনের মূল্যবান সময় ধরে রাখতে সাহায্য করার জন্য ওয়েডিং ফটোগ্রাফি অফার করেন।

কিন্তু আপনি যখন আপনার অফার তৈরি করতে থাকেন তখন আপনি এর বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে বেশি সচেতন হয়ে যান। কারণ এই বৈশিষ্ট্যগুলোই আপনার অফারটিকে আলাদা করে তুলবে এবং প্রতিযোগিতার বাজারে আপনাকে আলাদাভাবে তুলে ধরবে।

ইন্টারওয়েবে তৈরি সবচাইতে চমৎকার এবং মৌলিক ওয়েবসাইটটি আপনি তৈরি করতে পারেন।  বা আপনি খুব দ্রুত ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন। আপনি বাড়তি আকর্ষণ যোগ করতে হলিউডের মুভির মতো গুণগত মানের সেবা অফার করতে পারেন। অথবা, আপনি একদম ছোটখাটো ব্যবসায় যাতে ভিডিও বার্তার ব্যপক ব্যবহারের ফলে লাভ হয় সেইজন্য সুলভমূল্যে ভিডিও এডিটিঙের সেবা অফার করতে পারেন।

কিন্তু আপনার ক্রেতারা কিন্তু এইসব বৈশিষ্ট্য কিনতে আসেনি।

তারা যা কিনছে (এবং এসব কিনতে তাদের যা প্রভাবিত করছে) সেগুলো হচ্ছে এইসব বৈশিষ্ট্যের ফলাফল। কপিরাইটিঙের ভাষায় এগুলোকে আমরা বলি উপকারিতা।

আপনি দ্রুত কাজ জমা দিলে আমার কী লাভ? সবাই তো এই ধরণের সময়ের মধ্যেই সরবরাহের প্রতিশ্রুতি দেয়। আপনার সেরা মানের ভিডিও আমার কী কাজে লাগবে? এই কাজের জন্য কেন আমি বেশি টাকা দিবো? আপনার সৃষ্টিশীল নতুন সব ডিজাইনে আমার কী ধরণের উপকার হবে?  যে মূল্য উল্লেখ করা আছে তা কি যথাযথ?

আপনার বক্তব্যের মূল কথা বের করে আনতে এবং আপনার অফার দর্শকশ্রোতার কাছে বিক্রি করার জন্য সেটির উপকারিতাগুলো তাদের কাছে দৃষ্টিগোচরে আনার সেরা পদ্ধতি হচ্ছে আপনি যতোগুলো বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে জানেন তার সবগুলোর একটি তালিকা তৈরি করা। এটা করা বেশ সহজ হবে মনে হচ্ছে। এটি হবে আপনার পণ্য বা সেবাকে বিশেষ, অনন্য, এবং মূল্যবান হিসেবে তুলে ধরে এমন সবকিছুর তালিকা।

আপনার এইসব বৈশিষ্ট্যের বুলেট লিস্ট একবার তৈরি হয়ে গেলে আবার শুরুতে ফিরে যান এবং প্রতিটি বুলেটের শেষে “যাতে করে” এই বাক্যাংশটি বসিয়ে দিন। এই “যাতে করে”র পড়ে আপনি যে ব্যাখ্যাগুলো দিবেন সেটিই মূলত আপনার ক্রেতাসাধারণের কাছে আপনার পণ্য বা সেবার প্রকৃত উপকারিতা তুলে ধরবে।

মাত্র ৫টি কর্মদিবসে একটি নতুন ওয়েবসাইট যাতে করে...

  • আপনি এখনই কাজ শুরু করে দিতে পারেন।
  • আপনার বিনিয়োগের দশগুণ মাস শেষ হওয়ার আগেই ফেরত পাবেন।
  • নতুন করে ডিজাইন করার সময়ে ব্যবসার কোন মূল্যবান সুযোগ ইতোমধ্যে হারাবেন না আর।

সেরা মানের ওয়েডিং ফটোগ্রাফি যাতে করে...

  • আপনি যতোটা সুন্দর সময় কাটিয়েছেন ঠিক ততোটা সুন্দরভাবেই আপনার পারিবারিক স্মৃতি সংরক্ষণ করতে পারবেন।
  • প্রিয়জনের মুখে ঠিক সেইদিনের মতো সুন্দর হাসি সব সময়ই দেখতে পাবেন।

সেরা মানের ব্যবসায়িক ভিডিও এডিটিং যাতে করে...

  • আপনার ব্যবসার বাহ্যিক চেহারা যেন তার পেশাদারিত্বের সাথে খাপ খায়।
  • আপনি প্রথম দেখাতেই নতুন ক্রেতাদের উপর কর্তৃত্ব স্থাপন করতে পারবেন
  • আপনি প্রথম দেখাতেই নতুন ক্রেতাদের উপর কর্তৃত্ব স্থাপন করতে পারবেন

উপরের উদাহরণগুলোতে দেখেছেন, আপনি চাইলে প্রতিটি বৈশিষ্ট্যের জন্য একবারের বেশি “যাতে করে” বাক্যাংশটি ব্যবহার করতে পারবেন।  ফলে আপনি প্রতিটি উপকারিতা বিভিন্ন উপায়ে যাচাই করতে পারবেন। ফলে সম্ভাব্য ক্রেতাদের সাথে সাফল্যের সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন। আপনি হয়তো এই বাক্যগুলো হুবহু ব্যবহার করতে চাইবেন না (যদিও আপনি সেলস পেইজে “যাতে করে” বাক্যাংশটি ব্যবহার করতে পারবেন। তবে অতিথিদের কাছে আপনার অফারের প্রকৃত মূল্য তুলে ধরতে যে বক্তব্য প্রতিষ্ঠা করা প্রয়োজন তা এভাবে গঠন করা যায়।

দ্যা ক্রেজি এগ সেলস পেইজটি অতিথিদের কাছে এর উপকারিতা বর্ণনা করার কাজে খুবই দক্ষ (অ্যাপ্লিকেশনটি তাদের যে কাজে লাগবে)। এখানে অ্যাপ্লিকেশনটির প্রযুক্তিগত বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করে তাদের খেইহারা করে ফেলা হয় না (কিভাবে তারা উপকৃত হবে)।  তারা একবার সাইন আপ করলেই প্রয়োজনীয় সমস্ত খুঁটিনাটি জেনে নিতে পারবে।

Crazy Egg sales page copy
ক্রেজি এগ সেলস পেইজের কপি (উৎস)

ধাপ ৩: আপত্তিকর দিকগুলো খুঁজে বের করুন এবং সেগুলোর উত্তর তৈরি করুন

কোন অফারই সবার জন্য ১০০ ভাগ প্রযোজ্য হবে না। এর পিছনে নানা কারণ রয়েছে।

আপনি যদি শুধুমাত্র এক দেখায় আপনার অফার লোকজন কিনে নিবে এমনটা ভেবে থাকেন তাহলে কয়েকটা বিক্রি করতে পারলেও সংখ্যাটা কখনোই খুব বেশি হবে না। আমাদের প্রত্যেকেরই প্রয়োজনীয় জিনিস কেনার ক্ষেত্রেও অনেক ধরণের আপত্তি বা দ্বিধা থাকে। আর মূল্য যতো বেশি হবে আমাদের দ্বিধা ততোই বেড়ে যাবে কারণ সেই সাথে আমাদের প্রত্যাশাও বৃদ্ধি পাবে। (আপনার অফারের মূল্য নির্ধারণের সময় এটি মাথায় রাখুন।)

একটি ৫ ডলার মূল্যের ইবুক কেনা “অফারটি দেখলাম, কিনে ফেললাম” এতোটাই সহজ।

কিন্তু ৫০০ ডলার মূল্যের অনলাইন সেমিনার কিনতে গেলে নানা প্রশ্নের সম্মুখীন হতেই হবে:

  • আপনার যোগ্যতা কী?
  • এই সমাধান যে কাজ করে তার প্রমাণ কী?
  • আমি যদি সেমিনারের জন্য সময় বের করতে না পারি তাহলে কী হবে?
  • আমি কি গুগলে সার্চ দিয়ে আপনার শেখানো বিষয়গুলো জেনে নিতে পারি না?
  • আপনার প্রতিযোগীদের চাইতে আপনার পণ্য বা সেবা কোন দিক থেকে বেশি ভালো?
  • আমি কেন আরও সস্তায় একই রকম ‘ক’ পণ্য/সেবা কিনব না?
  • আমি কিভাবে বুঝব আপনি যা বলছেন ঠিক তাই সময় মতো সরবরাহ করবেন?

আপনার অফারের ক্ষেত্রে দর্শকশ্রোতার সম্ভাব্য সব আপত্তি ও প্রশ্নের ক্ষেত্রে আপনাকে নিজের কাছে সৎ থেকে উত্তর দিতে হবে। আরও ভালো হয়: আপনি যদি নিজেই আপনার দর্শকশ্রোতাদের তাদের আপত্তি ও প্রশ্ন সম্পর্কে জিজ্ঞেস করেন।

আপনার যদি ইতোমধ্যে একটি সচল ইমেইল লিস্ট থেকে থাকে তাহলে আপনার অফার প্রকাশ করার আগেই দ্রুত একটা প্রশ্নমালা পাঠিয়ে দিন। সেখানে আপনার সাবস্ক্রাইবাররা আপনার কাছ থেকে কিনতে কোন বিষয়ে সবচাইতে বেশি ভীত তা জিজ্ঞেস করুন। তাদের আশঙ্কার কারণগুলো সংগ্রহ করুন এবং আপনার অবজেকশন বিভাগে সেগুলোর উত্তর দিন।

অনেক ব্যবসার মালিকদের মধ্যে এই ধরণের প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে যাওয়ার প্রবণতা থাকে। তারা মনে করেন এই বিষয়ে কথা না বাড়ানোই ভালো। কিন্তু এই কৌশল অবলম্বন করলে তা আপনার ক্রেতাদের মধ্যে সন্দেহ তৈরি করবে। আর এই সন্দেহের ফলে আপনার বিক্রির হার কমে যাবে।

এইসব অবজেকশন নিয়ে একেবারে একটা রচনা লিখে ফেলতে হবে এমন না। এটি করার একটি চমৎকার উপায় হচ্ছে একটি এফএকিউ বিভাগ তৈরি করে সেখানে প্রশ্নের আকারে এই বিষয়গুলো ব্যাখ্যা করা। যেমন রেনেগেড ডায়েট সেলস পেইজটি এটির একটি উদাহরণ। এভাবে উপস্থাপন করার ভালো দিক হচ্ছে যেসব অতিথিরা এসব বিষয়ে চিন্তিত না তাদের জন্য এটি বাড়তি ঝামেলা তৈরি করে না। আর যারা এসব বিষয়ে দ্বিধান্বিত তারা প্রতিটি প্রশ্নে ক্লিক করে উত্তর জেনে নিতে পারবেন।

Sales page FAQ example
সেলস পেইজ এফএকিউয়ের উদাহরণ (উৎস)

আপত্তিকর বিষয়গুলো বা প্রশ্নগুলো নিজেই তুলে ধরুন। সরাসরি সেগুলোর উত্তর দিন, বিকল্প পন্থা জানিয়ে দিন, অথবা কেন এগুলোকে মানুষ যতোটা গভীর সমস্যা হিসেবে দেখছে ততোটা না তা ব্যাখ্যা করুন। পুরো বিষয়টি পরিষ্কার করে ব্যাখ্যা করুন যাতে সম্ভাব্য ক্রেতারা আত্মবিশ্বাস ও স্বাচ্ছন্দ্যের সাথে কেনার জন্য বাটনে চাপ দিতে আগ্রহী হয়।

ধাপ ৪: প্রমাণ বা ফলাফল সংগ্রহ করুন

আপনার অতীতের ক্রেতাদের কাছ থেকে প্রশংশাপত্র যোগার করুন। আপনার যদি একটাও না থাকে তাহলে আপনার আগের ক্রেতাদের কাছে ইমেইল করে প্রশংসাপত্র চাইতে শুরু করে দিন।

আপনার প্রতিটি প্রশংসাপত্র মনোযোগ দিয়ে পড়ুন। আপনার পণ্য বা সেবা সম্পর্কে শক্তিশালী কিছু উক্তি খুঁজে বের করুন। মানুষ কেন আপনার পণ্য বা সেবা ভালবাসে এবং কিভাবে এগুলোর দ্বারা উপকৃত হয়েছে তা খুঁজে বের করুন। 

আপনার সেলস পেইজে এই প্রশংসাপত্র থেকে উক্তি তুলে ধরে আপনার অফারের সপক্ষে যতো বেশি সামাজিক স্বীকৃতি সংগ্রহ করা সম্ভব করুন।

ধাপ ৫: ঝুঁকি দূরীকরণের গ্যারান্টি দিন

“আপনার পণ্য যেমন দাবী করছে সেভাবে কাজ না করলে কী হবে?” “আমি কোন উপকার না পেলে কী হবে?” “এটি এত মানুষের ক্ষেত্রে কাজ করেছে বিষয়টি আসলেই চমৎকার। কিন্তু আমার বেলায় কাজ না করলে কী হবে?”

এমনকি চোখের সামনে সামাজিক স্বীকৃতি থাকা সত্ত্বেও মানুষ দ্বিধায় ভুগবে যে আপনার সমাধান তাদের আসলেই কাজে লাগবে কিনা।

এইজন্য আপনার একটি ঝুঁকি দূরীকরণ গ্যারান্টি তৈরি করতে হবে যাতে তারা স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। এমন একটি গ্যারান্টি তৈরি করতে হবে যাতে কাজ করবে না এমন কিছু কেনার ভয় দূর হয় তাদের।

নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনার গ্যারান্টির ভাষা পরিষ্কার এবং নিরপেক্ষ হবে দুই পক্ষের জন্যই (আপনি এবং আপনার ক্রেতা)।

আপনি যদি একটি কোর্সে ৩০ দিনের মধ্যে মূল্য ফেরতের গ্যারান্টি দেন তাহলে সেখানে কোন শর্ত প্রযোজ্য আছে কিনা উল্লেখ করে দিন। যেমন, আপনি হয়তো প্রমাণ দেখতে চাইবেন যে আপনার ক্রেতা আপনার পদ্ধতি প্রয়োগ করেছে কিন্তু তারপরেও কাঙ্ক্ষিত ফলাফল পায়নি।

আপনি যদি শুধুমাত্র ৫ ডলারের একটি ইবুক বিক্রি করতে চান তাহলে প্রমাণ চাওয়াটা আপনার সময়ের অপচয় হতে পারে। বরং আপনি কেউ চাইলে তাঁকে মূল্য ফেরতের ব্যবস্থা করতে পারেন। (নিশ্চিত থাকতে পারেন যে প্রায় কেউই এই কাজ করবে না। উপরে শেয়ার করা স্ক্রিনশটে রেনেগেড ডায়েট বুকের অফার করা ৬০ দিনের মধ্যে মূল্য ফেরত গ্যারান্টি দেখে নিন।) কিন্তু আপনার অফার যদি ৫০০ ডলার মুল্যমানের হয়ে থাকে তাহলে কিছু শর্তাবলী প্রযোজ্য করে দিন। 

কাঠামো

আপনার সেলস পেইজের কাঠামো আপনার সমস্ত বক্তব্যকে আকৃতি দিয়ে এটিকে কার্যকর করে তুলতে পারে। আবারও বলছি, সব সময়ের সমস্ত সেলস পেইজের জন্য প্রযোজ্য এমন কোন কাঠামো নেই। তবে নিচের কাঠামোগত উপাদানগুলো পেইজে আপনার বক্তব্য তুলে ধরতে সাহায্য করবে:

১। দৃষ্টি আকর্ষণীয় শিরোনাম

আপনার মূল সেলস পেইজের শিরোনাম অতিথিদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারবে এবং তাদের মনের কথাই বলবে এমন হতে হবে। আপনার দর্শকশ্রোতার মনের কষ্টের সাথে একাত্ম হতে হবে এবং আরও জানার প্রতি তাদের আগ্রহ তৈরি করতে হবে। এটির প্রথমে আপনি যা বিক্রি করছেন তা কিনে তাদের যা লাভ হবে সেটার প্রতিশ্রুতি দিতে হবে।

২। ব্যাখ্যামূলক সহশিরোনাম

আপনার আবেগঘন শিরোনামের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ কিন্তু আরও বাস্তববাদী একটি সহশিরোনাম প্রস্তুত করুন। এখানে আপনার শিরোনামে যা প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে তা কিভাবে বাস্তবায়ন করা হবে তা ব্যাখ্যা করুন। সহশিরোনামের কাজ হচ্ছে আপনার শিরোনামে যে প্রতিশ্রুতি করা হয়েছে তার যে একটি বাস্তব ভিত্তি আছে তা প্রতিষ্ঠিত করা।

দর্শকশ্রোতার মনে কথা বলে এমন একটি কার্যকর দৃষ্টি আকর্ষণী শিরোনাম এবং বাস্তববাদী তথ্য সরবরাহ করে আপনার পণ্য কিভাবে কাঙ্ক্ষিত ফলাফল বয়ে আনবে তা নিশ্চিত করতে সহশিরোনাম প্রস্তুত করার জন্য সোয়েট ব্লকের জন্য তৈরি সেলস পেইজের শুরুর বিভাগটি দেখে নিন:  

Effective sales page heading and subheading example
সেলস পেইজের জন্য কার্যকর শিরোনাম এবং সহশিরোনামের উদাহরণ (উৎস)

৩। পরিষ্কার সংক্ষিপ্ত অনুচ্ছেদ

যদিও এটি একটি লম্বা ফর্মের সেলস পেইজ তবুও আপনি নিশ্চয়ই গাদা গাদা লেখা দিয়ে আপনার দর্শকশ্রোতাকে ভারাক্রান্ত করতে চান না। এতে করে তারা বরং নিজেদের মাথা ঠুকে পেইজ থেকে বের হয়ে যেতে পারে। আপনার বক্তব্য সংক্ষিপ্ত, পরিষ্কার, এবং সুগঠিত অনুচ্ছেদের সমন্বয়ে তৈরি করুন যাতে তা বুঝতে সুবিধা হয়। প্রতিটি অনুচ্ছেদের একটি মাত্র স্বচ্ছ উদ্দেশ্য থাকবে।

৪। আকর্ষণীয় বুলেট পয়েন্ট

মানুষের মস্তিষ্ক যে কোন ধরণের তালিকা ও বুলেট পয়েন্ট দেখতে ভালবাসে। এর কারণ হচ্ছে এতে করে মস্তিষ্ক সহজেই যে কোন তথ্য বিশ্লেষণ ও প্রক্রিয়াজাত করতে পারে।

নিশ্চিত হয়ে নিন যে চিত্তাকর্ষক সবগুলো পয়েন্ট এবং উপকারিতা আপনি বুলেট আকারে উল্লেখ করেছেন যাতে করে আপনার সম্ভাব্য ক্রেতারা আপনার অফারের প্রতি আকৃষ্ট হয়। প্রতিটি নতুন নতুন বুলেট পয়েন্টের সাথে আপনার অতিথিদের মস্তিষ্ক শুধু এটাই বলবে “চাই! চাই! ভালবাসি! দারুণ! চাই! চাই!” সাড়া না দিয়ে কোথায় যাবে?

৫। যোগ্যতার স্বাক্ষর

সাড়া পৃথিবী জুড়েই ডাক্তাররা কেন সাদা কোট পরেন? বিশেষ করে তাদের কাজই যখন লাল রক্ত আর দাগ লাগতে পারে শরীরের এমন সব তরল নিয়ে? কারণ সাদা কোট সহজেই চেনা যায় এবং এটি চিকিৎসা ক্ষেত্রে একটি প্রতীকে পরিণত হয়ে গিয়েছে। হাসপাতালে সাদা কোট পরে হেঁটে যাওয়া কাউকে তার পদবী জিজ্ঞেস করার দরকার হয় না।

একই রকমভাবে, আপনার সেলস পেইজে আপনার “সাদা কোটের” মাহাত্ম্য আপনাকেই বুঝাতে হবে। মানুষ কেন আপনার কথা শুনবে? তার চাইতে বড় কথা, তারা কেন আপনার কাছ থেকে পণ্য বা সেবা কিনবে? আপনার যোগ্যতা কী? আপনাকে কি কোন বিশ্বস্ত সোর্সে বিশেষভাবে উল্লেখ করা হয়েছে? আপনি কি আপনার কর্মক্ষেত্রে সুপরিচিত ক্রেতাদের সেবা দিয়েছেন?

নিচে দেখানো ল্যুনের মতো একটি ভালো ল্যান্ডিং পেইজ আপনার যোগ্যতা এবং এবং অতীতের কাজের প্রমাণ উপস্থাপন করে কর্মক্ষেত্রে আপনার দক্ষতা প্রমাণ করার ব্যবস্থা রেখেই তৈরি করতে হয়। 

Lune Landing Page Template
ল্যুন ল্যান্ডিং পেইজের টেম্পলেট

লোগো, গুণাবলী এবং অন্যান্য নানা ভাবে আপনার উদ্দেশ্য সাধনের জন্য যোগ্যতার স্বাক্ষর রাখুন। 

৬। সামাজিক স্বীকৃতি

শুধু পদবী দিয়েই মানুষ বিচার করে না। আপনি বাস্তব জীবনে মানুষের কাজে প্রভাব বিস্তার করেছেন তাও তারা জানতে চায়।

আপনার আগে যোগার করে রাখা প্রশংসাপত্রগুলো এখানেই কাজে লাগবে। আপনার সেলস পেইজ জুড়ে আগের ক্রেতাদের শক্তিশালী উক্তিগুলো ‘কিনুন’ লেখা বাটনের চারপাশে ছড়িয়ে দিন। শুধুমাত্র সামাজিক স্বীকৃতির ফলেই কেউ আপনার পণ্য কিনবে তা নাও হতে পারে। তবে ‘কিনুন’ লেখা বাটনে ক্লিক করারজন্য এটি বেশ ভালো প্রভাব বিস্তার করতে সক্ষম।

কিছু জ্ঞানের কথা: সামাজিক স্বীকৃতি শুধুমাত্র “অফিসিয়াল” ক্রেতাদের প্রশংসাপত্র বা ইমেইলে পাঠানো ধন্যবাদ বার্তার মাধ্যমেই পাওয়া যায় তা নয়। সামাজিক মাধ্যমে পাওয়া জন সাধারণের প্রশংসাবাণীও একই রকম গুরুত্বপূর্ণ। যদিও অপেক্ষাকৃতভাবে বেশি শক্তিশালী নাও হতে পারে।

এক নজরে দেখে নিন গেট লিডসের ল্যান্ডিং পেইজ টেম্পলেটে কিভাবে সামাজিক স্বীকৃতি হিসেবে টুইটারের প্রশংসাপত্র এবং সমালোচনা উল্লেখ করা হয়েছে। ক্রেতারা শুধুমাত্র আপনার সমাধানের জনপ্রিয়তা দেখতে পারবে তা নয়। তারা সামাজিক মাধ্যমে সেই বাস্তব মানুষগুলোর অস্তিত্ত্ব সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারবে। 

Get Leads Landing Page Template
গেট লিডসের ল্যান্ডিং পেইজের টেম্পলেট

৭। কাজে নেমে পড়া

এটি সম্ভবত আপনার পেইজের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

ক্রেতাদের কী করতে হবে তা নিয়ে দ্বিধায় ভুগতে দিবেন না। তাদের স্পষ্টভাবে বলুন। তাদের আহ্বান জানান সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলতে। এখনই কিনে ফেলতে উৎসাহিত করুন। আজই নাম লিখিয়ে ফেলতে বলুন। অফারটি থাকতে থাকতে রেজিস্ট্রেশন করে ফেলতে বলুন।

তাদের স্পষ্টভাবে বারবার বলুন!

আপনার লম্বা ফর্মের সেলস পেইজের শেষ অংশে যেয়ে কাজে লেগে পড়ার আহ্বান জানানোর জন্য অপেক্ষা করবেন না। আপনার প্রতিটি বক্তব্যের পর একটি করে “কিনুন লেখা বাটন” সরবরাহ করুন।

কিছু মানুষ অন্যদের আগে কিনে ফেলতে প্রস্তুত হয়ে যাবে – বিশেষ করে আপনার দর্শকশ্রোতাদের মধ্যে যারা সবচাইতে বেশি সচেতন। তাদের অপেক্ষায় রাখবেন না। তাদের যতো দ্রুত সম্ভব সিদ্ধান্ত নিতে অনুপ্রাণিত করুন (তবে যথেষ্ট ব্যাখ্যা সরবরাহ করার আগেই না)।

ডিজাইন

আমাদের টিউটোরিয়ালটি শেষ করার জন্য বলছি, চলুন সেলস পেইজ ডিজাইনে এক নজর চোখ বুলিয়ে আসি। কারণ উপস্থাপনের কারণে আপনার পেইজ সফল বা ব্যর্থ হতে পারে।

১। নায়কোচিত ভাবমূর্তি

নায়কোচিত ভাবমূর্তিটি হচ্ছে আপনার সেলস পেইজের মূল শিরোনামের সাথে থাকা দৃঢ় প্রতিমূর্তিটি।

আপনার দর্শকশ্রোতাকে আপনার সমাধানের সাথে একাত্ম বোধ করানোর জন্য একটি বড়সড়, শক্তিশালী ইমেজ দরকার। এখানে আপনার পণ্য দেখাতেই হবে এমন কোন কথা নেই। তবে এটিকে আপনার দর্শকশ্রোতার আকাঙ্ক্ষা এবং আপনার প্রতিশ্রুতিকে চিত্রায়িত করতে হবে। 

আপনি যদি সত্যিই অসাধারণ কোন নায়কোচিত শট চান তাহলে আপনার দর্শকের প্রত্যাশাকে চিত্রায়িত করে এমন কোন নিঃশব্দ ভিডিও লুপ যোগ করে দিতে পারেন যাতে তারা আপনার অফার করা সমাধানটি সম্পর্কে জানতে পারে।

এটি করার জন্য আপনাকে কোডিং বা ওয়েব ডিজাইন বিশেষজ্ঞ হতে হবে না! আরজেন ল্যান্ডিং পেইজ টেম্পলেটটি দেখুন। এখানে আপনার পেইজের হিরো বিভাগে নিরবিচ্ছিন্ন কিন্তু শক্তিশালী ভিডিও যুক্ত করে দেওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে:

RGen Landing Page Template
আরজেন ল্যান্ডিং পেইজ টেম্পলেট

২। ফাঁকা জায়গা

আপনার সেলস পেইজে এই একটা জায়গাতেই আপনি নেতিবাচক কিছু প্রত্যাশা করতে পারেন। তবে আপনার এমন ফাঁকা জায়গা বেশ খানিকটা লাগবে।

এই ফাঁকা জায়গাগুলো আপনার পেইজের অনুচ্ছেদ, বুলেট পয়েন্ট, সিদ্ধান্ত নেওয়ার বাটন, এবং অন্যান্য আরও উপাদানের আশেপাশে থাকবে।

কারণ লম্বা ফর্মের সেলস পেইজগুলো বাস্তবিক অর্থেই লম্বা। আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে যে পেইজে আপনার বিভিন্ন বিভাগের মধ্যে “শ্বাস নেওয়ার” এবং অতিথিদের চোখের “বিশ্রামের” জন্য পর্যাপ্ত জায়গা রয়েছে। একটা লম্বা পেইজ যদি হিবিজিবি হয়ে থাকে তাহলে তা আপনার মধ্যে শুধুই উদ্বেগ তৈরি করবে আর আপনি পেইজ ছেড়ে চলে যেতে চাইবেন।

৩। ভিডিও

কোন কিছু ব্যাখ্যা করতে, আপনার পণ্যের উপকারিতা প্রদর্শন করতে, বা কোন ক্রেতার প্রশংসাবাণী তুলে ধরতে যদি ভিডিও যোগ করার ব্যবস্থা থাকে তাহলে যে কোন মূল্যে তা করুন।

ভিডিওগুলোকে আপনার সেলস পেইজের ভিজ্যুয়াল প্যারাগ্রাফ হিসেবে দেখুন। যেখানে জোর দিয়ে কিছু বলার প্রয়োজন হবে সেখানেই যুক্ত করে দিন।

সেই সাথে ভিডিওর চারপাশের জায়গায় নকশা তৈরি করে দিন যাতে করে একগাদা টেক্সট দিয়ে এটিকে সম্পূর্ণ করার প্রয়োজন আছে বলে মনে না হয়। কারণ দর্শক একই সাথে টেক্সট পড়তে এবং ভিডিও দেখতে পারবেন না।

৪। ক্লিক করা যায় এমন বাটন

নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনার সিদ্ধান্ত নিতে অনুপ্রেরণাদায়ক বাটনগুলোতে ক্লিক করা যায় এবং দেখলে যাতে বুঝা যায় যে এতে ক্লিক করা যাবে। কোন একটা অংশ বাটনের কাজ করে কিনা তা কখনোই অনুমানের উপর নির্ভর করা উচিত না।

আপনার কিনুন লেখা বাটনগুলোকে দর্শনীয় করে ক্রেতার মনোযোগ আকর্ষণ করতে এমন একটি রং ব্যবহার করুন এজতি আপনার সেলস কেইজের মধ্যে ফুটে উঠবে এবং দৃষ্টি স্বতঃস্ফূর্তভাবে ওই বাটনের দিকে চলে যাবে।

এক নজরে আপনার লম্বা ফর্মের সেলস পেইজ

মনে রাখবেন যে আপনি কখনোই এমন কোন সেলস পেইজ তৈরি করতে চান না যেটি অতিথির মুখের উপর “এখনই কিনুন! এখনই কিনুন! এখনই কিনুন!” বলে চিৎকার করে উঠবে।

আপনার লম্বা ফর্মের সেলস পেইজে আপনার সম্ভাব্য ক্রেতারা আপনার অফারের গল্প জানতে উৎসাহী হবে এমন একটি যাত্রা হবে। এখানে আপনি যা বিক্রি করছেন  তার উপকারিতা এবং আপনার অফারের প্রকৃত মূল্য তুলে ধরা হবে।

আপনার অফার যদি একদমই ছোট হয়ে থাকে এবং অতিথিদের সাথে সুসম্পর্ক তৈরির জন্য আপনি শুধু তাদের নাম আর ইমেইল অ্যাড্রেস চাচ্ছেন ব্যাপারটা যদি এমন হয়ে থাকে তাহলে আপনি উদ্দেশ্য সাধনের জন্য একটি সংক্ষিপ্ত ও বিশেষায়িত ল্যান্ডিং পেইজ তৈরি করতে পারেন। 

কিন্তু আপনি যদি টাকার বিনিময় করে অতিথিদের ক্রেতায় পরিণত করতে চান তাহলে তাদের প্রভাবিত করতে হলে আরও বেশি কিছু বলতে হবে যাতে করে আপনার অফারের মূল্য তারা বুঝে এবং আপনার কাছ থেকে পণ্য বা সেবা কিনতে উৎসাহিত হয়।

আপনি কতো মূল্যে কী বিক্রি করছেন এবং ক্রেতারা আপনার ব্র্যান্ড ও সমাধান সম্পর্কে কতোটুকু সচেতন তার উপর নির্ভর করছে আপনাকে আরও কতোটুকু বেশি কথা বলতে হবে।  সেলস পেইজের দৈর্ঘ্য শেষমেশ যাই হোক না কেন, প্রতিটি কার্যকর সেলস পেইজের অন্তত নিম্নোক্ত প্রয়োজনীয় উপাদান রয়েছে যেগুলোকে তিন ভাগে ভাগ করা যায়:

বিষয়বস্তু:

  • দর্শকশ্রোতা এবং তাদের সচেতনতার মাত্রা চিহ্নিতকরণ
  • বৈশিষ্ট্য উল্লেখ করতে হবে “যাতে করে” সেগুলো আপনার অফারের প্রকৃত উপকারিতা তুলে ধরতে পারে
  • সম্ভাব্য আপত্তিকর বিষয় এবং সেগুলোর উত্তর
  • ফলাফলের প্রমাণ
  • ঝুঁকি দূরীকরণ গ্যারান্টি

কাঠামো

  • দৃষ্টি আকর্ষণীয় শিরোনাম
  • বিশ্লেষণমূলক সহশিরোনাম
  • স্পষ্ট, সংক্ষিপ্ত অনুচ্ছেদ
  • আকর্ষণীয় বুলেট পয়েন্ট
  • যোগ্যতার স্বাক্ষর এবং পদবী
  • সামাজিক স্বীকৃতি
  • সিদ্ধান্ত নিতে উৎসাহ প্রদান

ডিজাইন:

  • নায়কোচিত ভাবমূর্তি
  • ফাঁকা জায়গা
  • ভিডিও (সম্ভব হলে বা প্রযোজ্য হলে)
  • ক্লিক করা যায় এমন বাটন

মনে রাখবেন, আপনাকে ব্যবসার জন্য উচ্চ কর্মক্ষমতাসম্পন্ন ল্যান্ডিং পেইজ তৈরি করতে হলে একদম শূন্য থেকে শুরু করতে হবে না।  এই জনপ্রিয় ল্যান্ডিং পেইজ টেম্পলেটগুলো আপনার পেইজ নিমিষেই সেট আপ করে দিতে সাহায্য করবে। এখানে রয়েছে সবগুলো প্রয়োজনীয় বিভাগ এবং আপনার প্রয়োজনে লাগতে পারে এমন অস্থায়ী অংশ।

আপনি যদি ব্যবসার বিক্রি বাড়াতে সক্ষম এমন কার্যকর ডিজাইন সম্পর্কে মতামত জানাতে চান তাহলে এখানে সযত্নে বেছে নেওয়া ডিজাইনগুলো দেখে নিন।

আপনার সেলস পেইজ দেখতে কেমন?

প্রতিটি সেলস পেইজই তার অফারের মতোই অনন্য। এমন কোন ধরাবাঁধা পেইজ নেই যেটি আপনার বা অন্য সবার প্রয়োজন মিটাতে সক্ষম। 

তবে আমরা যে পরিকল্পনা এখানে তৈরি করে দিয়েছি তা যদি আপনি অনুসরণ করেন, তাহলে আমরা যেসব প্রয়োজনীয় উপাদানের বিষয়ে আলাপ করেছি সেগুলো যোগ করেছেন কিনা নিশ্চিত হয়ে নিন। সেরা ফলাফল পেতে হলে আপনার অফারের প্রয়োজনীয়তা অনুসারে আপনার সেলস পেইজটি তৈরি করে নিন।

সেই সাথে, আপনি আপনার ফলাফলের তুলনামূলক বিচার করে প্রক্রিয়াটি সম্পর্কে আরও পরিষ্কারভাবে জেনে নিন:

কাজেই আপনার সেলস পেইজ দেখতে কেমন হয়েছে? কোন কোন উপাদানের দিকে আপনার আরও মনোযোগ দেওয়া উচিত বলে মনে করেন এবং কেন? আমরা সেলস পেইজ সম্পর্কে এখানে আলোচনা করিনি এমন কোন প্রশ্ন আছে কি? নিচের কমেন্টে আমাদের জানিয়ে দিন!

Advertisement
Advertisement
Advertisement
Advertisement
Looking for something to help kick start your next project?
Envato Market has a range of items for sale to help get you started.